ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদ প্রচারের নেপথ্যে-২৯

সংখ্যা: ২০৭তম সংখ্যা | বিভাগ:

শয়তান যে মানুষকে নেক ছূরতে ধোঁকা দেয়, এ বিষয়টি ভালোভাবে অনুধাবন করেছিলো শয়তানের অনুচর ইহুদী এবং খ্রিস্টানরা। মুসলমানদের সোনালী যুগ এসেছিল শুধু ইসলামের পরিপূর্ণ অনুসরণের ফলে। শয়তানের চর ইহুদী খ্রিস্টানরা বুঝতে পেরেছিল মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ, অনৈক্য, সংঘাত সৃষ্টি করতে পারলেই ইসলামের জাগরণ এবং বিশ্বশক্তি হিসেবে মুসলমানদের উত্থান ঠেকানো যাবে। আর তা করতে হবে- ইসলামের মধ্যে ইসলামের নামে নতুন মতবাদ প্রবেশ করিয়ে। শুরু হয় দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা; যার মূলে থাকে খ্রিস্টীয় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ। জন্ম হয় ওহাবী মতবাদের। ওহাবী মতবাদ সৃষ্টির মূলে থাকে একজন ব্রিটিশ গুপ্তচর- হ্যামপার। সে মিসর, ইরাক, ইরান, হেজাজ ও তুরস্কে তার গোয়েন্দা তৎপরতা চালায় মুসলমানদের বিভ্রান্ত করার জন্য। ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদের উপর তুর্কি ভাষায় রচিত হযরত মুহম্মদ আইয়ূব সাবরী পাশা রহমতুল্লাহি আলাইহি-এর “মিরাত আল হারামাইন” কিতাবের ইংরেজি অনুবাদ থেকে বাংলায় ধারাবাহিকভাবে ভাষান্তর করা হচ্ছে ইনশাআল্লাহ।

(ধারাবাহিক)

আব্দুল্লাহ বিন সাউদের পর তারক্বি বিন আব্দুল্লাহ বংশপরস্পরায় ১২৪০ হিজরী সনে (১৮২৪) ওয়াহাবীদের নেতা হিসেবে অধিষ্ঠিত হয়। তারক্বির পিতা আব্দুল্লাহ ছিল সাউদ বিন আব্দুল আযীযের পিতৃব্য।
১২৪৯ হিজরী সনে মাশহারী বিন সাউদ তারক্বিকে হত্যা করে এবং অঞ্চলটিকে জবরদখল করে। এবং তারক্বিপুত্র ফয়সাল মাশহারীকে হত্যা করে ১২৫৪ হিজরী সনে ওয়াহাবীদের নেতৃত্ব দখল করার জন্য। যদিও সে মুহম্মদ আলী পাশা কর্তৃক প্রেরিত সৈনিকদের প্রতিহত করার প্রচেষ্টা চালায়, তথাপি বন্দিত্বের শেকল আদৌ সে এড়াতে পারেনি। মিরলিওয়া (ব্রিগেডিয়ার জেনারেল) খুরশিদ পাশা তাকে গ্রেফতার করে মিসরে প্রেরণ করেন। সেখানে তার বন্দী জীবনের সূচনা ঘটে। অতঃপর সউদপুত্র খালিদ বে কে পাঠানো হয় দ্বারিয়ার আমীর হিসেবে রিয়াদের পথে, যদিও বা সে তখন মিসরে বসবাস করছিল। খালিদ বে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত হয়েছিল উসমানীয় খিলাফতের রীতি-নীতিতে, আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের বিশুদ্ধ আক্বীদাতে সে বিশ্বাসী ছিল। সে ছিল অত্যন্ত মার্জিত ব্যক্তিত্ব। সে সেখানকার আমীর হিসেবে দেড় বছর দায়িত্ব পালন করেছিল। আব্দুল্লাহ বিন সাজয়ান নামে এক দুর্বৃত্ত উসমানীয় খিলাফতের প্রতি মিছে আনুগত্য দেখিয়ে অনেকগুলি গ্রাম দখল করে। এক সময় সে দ্বারিয়াতে আক্রমণ করে এবং নিজেকে নজদের আমীর হিসেবে ঘোষণা দেয়। খালিদ মক্কা শরীফ-এ আশ্রয় গ্রহণ করেন। ফয়সাল মিসরে কারাবন্দী অবস্থায় ছিল সে অবস্থাতে জাবা আস্ সামারের আমীর বিন রশিদের সহযোগিতায় পলায়ন করে এবং বিন সাযায়ানকে হত্যা করে। উসমানীয় খিলাফতের প্রতি আনুগত্যের শপথ গ্রহণ করে সে দ্বারিয়াতে আমীর নিযুক্ত হয় ১২৫৯ হিজরী সনে ।

ফয়সালের মোট চার পুত্র সন্তান ছিল যাদের নাম পর্যায়ক্রমে আব্দুল্লাহ, সাউদ, আব্দুর রহমান এবং মুহম্মদ সাইদ। সর্বজ্যৈষ্ঠ জন আব্দুল্লাহকে নজদের আমীর হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। ইতিমধ্যে সাউদ তার বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী মনোভাব নিয়ে বেড়ে উঠতে থাকে এবং তার তল্পীবাহক হিসেবে বেড়ে উঠতে থাকে। বাহরাইন দ্বীপে ১২৮৮ হিজরীতে (১৮৭১ ঈসায়ী) তার সাথে সাক্ষাৎকারী একদল বিদ্রোহী। আব্দুল্লাহ তার তার ভাই সাইদকে প্রেরণ করে বিদ্রোহী সাউদকে দমন করার জন্য, কিন্ত তারা পরাজিত হয়। সাউদের অন্তরে নজদের সমস্ত শহরগুলি দখল করার জন্য বিকৃত লোলুপ বাসনা লক লক করতে থাকে। কিন্ত যেহেতু আব্দুল্লাহ ছিলেন উসমানীয়ান খিলাফতের পক্ষ থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত আমীর, তাই তার সাহায্যার্থে ফারীক্ব (মেজর জেনারেল) নাফিদ্ব পাশা ৬ষ্ঠ বাহিনী নিয়ে সাউদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করলেন। সাউদ এবং সকল বিদ্রোহীরা চিরতরে নির্র্মূলকৃত হলো এবং নজদ পুনরায় প্রশান্তি এবং সংহতি লাভ করলো। সকল মুসলমান প্রাণভরে হযরত খলীফা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার  জন্য দোয়া করলেন।

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল হাসান

যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-১২৩

‘পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষার’ অর্থ হচ্ছে- ‘পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও অনৈসলামী শিক্ষা’। যার ফলাফল ‘শূন্য ধর্মীয় শিক্ষা’। বিতর্কিত ও বামঘেঁষা মন্ত্রী এটা করলেও ‘পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না’- এ প্রতিশ্রুতির সরকার কী করে তা গ্রহণ করতে পারলো?

বেপর্দা-বেহায়াপনায় আক্রান্ত কলুষিত সমাজের নতুন আতঙ্ক ‘সেলফি’। সেলফি উম্মাদনায় সমাজে ব্যাপকভাবে বেড়েছে হত্যা, আত্মহত্যা, সম্ভ্রমহরণ, সড়ক দুর্ঘটনাসহ নানা অপরাধ। বিভিন্ন দেশে সেলফি’র উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও বাংলাদেশে কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। সরকারের উচিত অপসংস্কৃতি এবং আত্মহত্যার মতো অপরাধ বন্ধ করতে অবিলম্বে সেলফি নিষিদ্ধ করা।

প্রতারণার ফাঁদে নাগরিক জীবন। সরকারের নজরদারী নেই। রকমফের প্রতারণা বন্ধে সম্মানিত ইসলামী আদর্শ বিস্তারের বিকল্প নেই

পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চলছে অবাধ খ্রিস্টান ধর্মান্তরিতকরণ। বিষয়টি অদূর ভবিষ্যতে গভীর শঙ্কার। রহস্যজনক কারণে নীরব সরকার