যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-৯৮

সংখ্যা: ২২৫তম সংখ্যা | বিভাগ:

মূলত যুগে যুগে মিথ্যাবাদী আর মুনাফিকরাই হক্বের বিরোধিতা করেছে, হক্বের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করেছে। তাই খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে মুনাফিকদেরকে ‘কাযযাব’ বা মিথ্যাবাদী বলে উল্লেখ করেছেন। যেমন- পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “মহান আল্লাহ পাক তিনি সাক্ষ্য দিচ্ছেন যে, নিশ্চয়ই মুনাফিকরাই মিথ্যাবাদী।” (পবিত্র সূরা মুনাফিকুন শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১)
উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ দ্বারা এটাই প্রমাণিত হয় যে, যারা মুনাফিক তারা অবশ্যই মিথ্যাবাদী। আবার যারা মিথ্যাবাদী তারাই মুনাফিক। কেননা, পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে মুনাফিকের যে আলামত বা লক্ষণ উল্লেখ করা হয়েছে তন্মধ্যে একটি হলো মিথ্যা কথা বলা।
মুজাদ্দিদে আ’যম ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার যারা বিরোধিতাকারী তারা উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদেরই পূর্ণ মিছদাক। অর্থাৎ তারা একই সাথে মুনাফিক ও কাট্টা মিথ্যাবাদী। তাই তারা মানুষদেরকে বিভ্রান্ত করার জন্যে স্মরণিকা-বার্ষিকী, পত্র-পত্রিকা এবং বক্তৃতার মাধ্যমে মিথ্যা ও প্রতারণার আশ্রয় নেয়।
(ধারাবাহিক)
পরিশিষ্ট
পরিশেষে একটি কথা না বললেই নয় তা হলো, কাযযাবগংদেরকে বহুবার ওয়াজ-মাহফিল, পত্র-পত্রিকা ও লিফলেট-হেন্ডবিলের মাধ্যমে “প্রকাশ্য বাহাছের চ্যালেঞ্জ” দিয়ে বলা হয়েছে যে, “যদি সত্যবাদী হয়ে থাক এবং বুকে যদি সাহস থাকে, ইলমের যদি এতোই জোর থেকে থাকে, তবে প্রকাশ্য ময়দানে জনগণের সামনে এসে দলীল দ্বারা প্রমাণ করে দেখাও রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার কোন আক্বীদা ও আমলগুলো শরীয়ত উনার খিলাফ কিনা যদি প্রমণ করতে পার, তবে আমরা জনগণের সামনেই প্রকাশ্যে তওবা করবো, আর যদি তোমাদের আক্বীদা ও আমল শরীয়ত উনার খিলাফ প্রমাণিত হয়, তবে তোমাদেরকেও প্রকাশ্যে জনগণের সামনে তওবা করতে হবে।
কিন্তু আজ পর্যন্ত তারা বাহাছের ডাকে সাড়া দেয়ার সাহস দেখাতে পারেনি। তাই এ কিতাবের মাধ্যমে তাদেরকে আবারও আহ্বান জানানো হলো এ কিতাবে বর্ণিত বিষয় বস্তুসহ যে কোন বিষয়ে, যে কোন স্থানে, যে কোন সময়ে আমরা বাহাছ করতে রাজি আছি ইনশাআল্লাহ। কারণ আমরা চাই হক্ব প্রকাশ ও প্রতিষ্ঠা লাভ করুক। আর নাহক্ব বা বাতিল নিশ্চিহ্ন হয়ে যাক। মহান আল্লাহ পাক আমাদেরকে হক্ব বুঝর, মানার ও হক্বের উপর ক্বায়িম-দায়িম থাকার এবং বাতিল প্রতিরোধ ও নিশ্চিহ্ন করার সহযোগিতা প্রদানের তাওফীক দান করুন। (আমীন)
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “সত্য এসেছে মিথ্যা দুরীভূত হয়েছে। নিশ্চয়ই নিশ্চয়ই মিথ্যা দুরীভূত হওয়ার যোগ্য।”
-মুফতী মুহম্মদ আবু ইসহাক, বাসাবো।

যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-১২৩

‘পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষার’ অর্থ হচ্ছে- ‘পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও অনৈসলামী শিক্ষা’। যার ফলাফল ‘শূন্য ধর্মীয় শিক্ষা’। বিতর্কিত ও বামঘেঁষা মন্ত্রী এটা করলেও ‘পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না’- এ প্রতিশ্রুতির সরকার কী করে তা গ্রহণ করতে পারলো?

বেপর্দা-বেহায়াপনায় আক্রান্ত কলুষিত সমাজের নতুন আতঙ্ক ‘সেলফি’। সেলফি উম্মাদনায় সমাজে ব্যাপকভাবে বেড়েছে হত্যা, আত্মহত্যা, সম্ভ্রমহরণ, সড়ক দুর্ঘটনাসহ নানা অপরাধ। বিভিন্ন দেশে সেলফি’র উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও বাংলাদেশে কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। সরকারের উচিত অপসংস্কৃতি এবং আত্মহত্যার মতো অপরাধ বন্ধ করতে অবিলম্বে সেলফি নিষিদ্ধ করা।

প্রতারণার ফাঁদে নাগরিক জীবন। সরকারের নজরদারী নেই। রকমফের প্রতারণা বন্ধে সম্মানিত ইসলামী আদর্শ বিস্তারের বিকল্প নেই

পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চলছে অবাধ খ্রিস্টান ধর্মান্তরিতকরণ। বিষয়টি অদূর ভবিষ্যতে গভীর শঙ্কার। রহস্যজনক কারণে নীরব সরকার