সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন ক্বায়িম মাক্বামে সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম

সংখ্যা: ২৭৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম,  উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি যে, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের পরিপূর্ণ ক্বায়িম-মাক্বাম এই সম্পর্কে মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়া সালাম তিনি স্বয়ং নিজে ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমাদের হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার নিসবত মুবারক সরাসরি সমস্ত হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সাথে। তবে বিশেষভাবে উনার নিসবত মুবারক হচ্ছে সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি ‘আলাল আলামীন, ত্বাহিরা, ত্বইয়িবা, উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার সাথে এবং সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি ‘আলাল আলামীন, ত্বাহিরা, ত্বইয়িবা, উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ্ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার সাথে।” সুবহানাল্লাহ!

এটা হচ্ছে ক্বায়িম মাক্বামে হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম, উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার একখানা একক আখাছ্ছুল খাছ খুছূছিয়াত বা বৈশিষ্ট্য মুবারক। এই আখাছ্ছুল খাছ খুছূছিয়াত বা বৈশিষ্ট্য মুবারক অন্য কাউকে দেওয়া হয়নি। সুবহানাল্লাহ!

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম, উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত নিসবত মুবারক খাছভাবে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার সাথেÑ এই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ক্বওল শরীফ উনার লক্ষ-কোটি ব্যাখ্যা মুবারক রয়েছেন। তন্মধ্যে একখানা ব্যাখ্যা মুবারক হচ্ছেন উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মাধ্যম দিয়ে যেমন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় নসবনামাহ মুবারক ক্বিয়ামত পর্যন্ত জারি থাকবেন তথা ক্বিয়ামত পর্যন্ত হযরত আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা দুনিয়ার যমীনে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নিবেন তেমনিভাবে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার মাধ্যম দিয়েও আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় নসবনামাহ মুবারক ক্বিয়ামত পর্যন্ত জারি থাকবেন তথা ক্বিয়ামত পর্যন্ত উনার সম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনারা, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা দুনিয়ার যমীনে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নিবেন অর্থাৎ উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত হযরত আওলাদ আলাইহিমু সালাম তথা হযরত আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়ে যেমন জিন-ইনসান ক্বিয়ামত পর্যন্ত নি‘য়ামত মুবারক লাভ করবে, নাজাত লাভ করবে, মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অর্থাৎ উনাদের হাক্বীক্বী মুহব্বত-মা’রিফত, নিসবত-কুরবত, রেযামন্দি-সন্তুষ্টি মুবারক লাভ করবে, ইহকাল-পরকালে হাক্বীক্বী কামিয়াবী লাভ করবে, তেমনি আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম অর্থাৎ আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার সম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনাদের তথা উনার পরবর্তী মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়েও জিন-ইনসান ক্বিয়ামত পর্যন্ত নি‘য়ামত মুবারক লাভ করবে, নাজাত লাভ করবে, মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অর্থাৎ উনাদের হাক্বীক্বী মুহব্বত-মা’রিফত, নিসবত-কুরবত, রেযামন্দি-সন্তুষ্টি মুবারক লাভ করবে, ইহকাল-পরকালে হাক্বীক্বী কামিয়াবী লাভ করবে। সুবহানাল্লহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عَنْ حَضْرَتْ اَبِـىْ سَعِيْدِ ۣ الْـخُدْرِىِّ رَضِىَ اللّٰهُ تَعَالـٰی عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللّٰهِ صَلَّى اللّٰهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَـخْرُجُ رَجُلٌ مِّنْ اَهْلِ بَيْتِـىْ عِنْدَ اِنْقَطَاعٍ مِّنَ الزَّمَانِ وَظُهُوْرٍ مِّنَ الْفِتَـنِ رَجُلٌ يُّقَالُ لَهُ السَّفَاحُ فَيَكُوْنُ اِعْطَاؤُهُ الْمَالَ حَثْيًا.

অর্থ: “হযরত আবূ সাঈদ খুদরী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যামানার শেষের দিকে যখন ফিতনা-ফাসাদ চরমভাবে প্রকাশ পাবে তথা বেপর্দা-বেহায়া, অত্যাচার-অবিচার, যুলুম-নির্যাতনে, বেইনসাফীতে পুরো পৃথিবী ভরে যাবে, কোথাও সম্মানিত ইনসাফ উনার লেশমাত্র অবশিষ্ট থাকবে না, তখন আমার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্য থেকে একজন আখাছ্ছুল খাছ মহাসম্মানিত ব্যক্তিত্ব মুবারক, একজন মহান খলীফা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনি দুনিয়ার যমীনে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নিবেন। সুবহানাল্লাহ! তিনি এমন একজন মহান ব্যক্তিত্ব মুবারক, এমন একজন মহান খলীফা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম- উনাকে ‘হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম’ বলা হবে। সুবহানাল্লাহ! তিনি সমস্ত বাতিলী শক্তি তথা কাফির-মুশরিক, ইহুদী-খ্রিস্টান, বৌদ্ধ, মজুসী, মুনাফিক ও উলামায়ে সূ’দেরকে নিশ্চিহ্ন করে দিয়ে, সমস্ত ফিতনা-ফাসাদ, যুলুম-নির্যাতন, অত্যাচার-অবিচার, বেইনসাফীকে মিটিয়ে দিয়ে দুনিয়ার যমীনে ইনসাফ প্রতিষ্ঠা করবেন তথা সম্মানিত খিলাফত মুবারক জারি করবেন। সুবহানাল্লাহ! আর তিনি উনার দু’হাত মুবারক ভরে অঢেল, বেহিসাব ধন-সম্পদ বিলিয়ে দিবেন।” সুবহানাল্লাহ! (দালায়িলুন নুবুওওয়াহ্ লিলবাইহাক্বী ৬/৫১৪, খাছায়িছুল কুবরা ২/২০৩, আস সুনানুল ওয়ারিদা, আবূ নাঈম, আল ফিতান, মাজমাউয যাওয়াইদ ৭/৬১১, সুবুলুল হুদা ওয়ার রশাদ ১০/৯২, বিদায়া-নিহায়া ৬/২৪৮ পৃষ্ঠা ইত্যাদি)

উপরোক্ত মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাধ্যমে অত্যন্ত সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো যে, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সুলত্বনুন নাছীর, আবুল খুলাফা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনি বর্তমান চরম ফেতনা-ফাসাদের যামানায় অতিশীঘ্রই সারা পৃথিবীতে, সারা কায়িনাতে মহাসম্মানিত খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ মুবারক প্রতিষ্ঠা করবেনই করবেন ইনশাআল্লাহ। সুবহানাল্লাহ!

এই মহাসম্মানিত খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ মুবারকই আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম, সুলত্বনুন নাছীর, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর সাইয়্যিদুনা হযরত শাহযাদা ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মাধ্যম হয়ে উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়ে তথা আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সুলত্বনুন নাছীর, মুজাদ্দিদে আ’যম, আবুল খুলাফা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার পরবর্তী মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম অর্থাৎ আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার পরবর্তী বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়ে সর্বশেষ ইমাম ও ১২ তম খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার কাছে যেয়ে পৌঁছবে। সুবহানাল্লাহ! হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি এই ধারাবাহিকতায়ই খলীফা হবেন। উনাকে নতুন করে সম্মানিত খিলাফাত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ মুবারক প্রতিষ্ঠা করতে হবে না। আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম, সুলত্বনুন নাছীর, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর সাইয়্যিদুনা হযরত শাহযাদা ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার থেকে শুরু করে হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার পর্যন্ত হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনিসহ যত খলীফা আলাইহিমুস সালাম উনারা দুনিয়ার যমীনে তাশরীফ মুবারক নিবেন উনারা প্রত্যেকেই আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সুলত্বনুন নাছীর, আবুল খুলাফা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আওলাদ আলাইহিমুস সালাম তথা উনার মুবারক বংশধর হবেন অর্থাৎ আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আওলাদ আলাইহিমুস সালাম তথা উনার মুবারক বংশধর হবেন। সুবহানাল্লাহ!

তাই আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সুলত্বনুন নাছীর, আবুল খুলাফা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার একখানা সম্মানিত বিশেষ লক্বব মুবারক হচ্ছেন, আবুল খুলাফা তথা হযরত খলীফা আলাইহিমুস সালাম উনাদের মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র পিতা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম। অর্থাৎ সাইয়্যিদুল খলাফা, আবুল খুলাফা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্য থেকে উনার সুমহান আওলাদ ১১তম খলীফা, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনিতো অবশ্যই; শুধু তাই নয়, ১২তম খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি এবং কমপক্ষে আরো পাঁচ থেকে আটজন মহান খলীফা আলাইহিস সালাম হবেন। সুবহানাল্লাহ! তবে ১১তম খলীফা, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি এবং ১২তম খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি অর্থাৎ উনারা ব্যতীত বাকি পাঁচ থেকে আটজন মহান খলীফা আলাইহিস সালাম উনারা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে বর্ণিত ১২ জন আখাছ্ছুল খাছ মহান খলীফা আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্তর্ভুক্ত নন; কিন্তু উনারা সৎ ও ইনসাফগার খলীফা হবেন। উনারাও যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অর্থাৎ উনাদের কর্তৃক মনোনীত। সুবহানাল্লাহ!

এই বিষয়টিও মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ দ্বারা প্রমাণিত। সুবহানাল্লাহ!

সেটাই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, যেই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফখানা ১০ম হিজরী শতকের মুজাদ্দিদ হযরত ইমাম জালালুদ্দীদ সুয়ূত্বী রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি উনার লিখিত বিশ্বখ্যাত কিতাব ‘জামি‘উল আহাদীছ’ ও আরো অন্যান্য বিশ্বখ্যাত কিতাব মুবারক উনাদের মধ্যে উল্লেখ করেছেন-

عَنْ حَضْرَتْ اِبْنِ عَبَّاسٍ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اِذَا مَاتَ الْـخَامِسُ مِنْ اَهْلِ بَـيْـتِـىْ فَالْـهَرْجُ فَالْـهَرْجُ حَتّٰـى يَـمُوْتَ السَّابِعُ ثُـمَّ كَذٰلِكَ حَتّٰـى يَقُوْمَ الْـمَهْدِىُّ.

অর্থ: “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহ তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, যিনি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম,  হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, (আমার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্য থেকে আমার একজন আখাছ্ছুল খাছ মহান খলীফা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনি দুনিয়ার যমীনে, সারা পৃথিবীতে, সারা কায়িনাতে মহাসম্মানিত খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ মুবারক প্রতিষ্ঠা করবেন এবং সারা পৃথিবীব্যাপী, সারা কায়িনাতব্যাপী মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালন করবেন। উনার পর উনার সুমহান আওলাদ আলাইহসি সালাম তিনি খলীফা হবেন এবং সারা পৃথিবীব্যাপী, সারা কায়িনাতব্যাপী মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করবেন। অতঃপর উনার পরবর্তী মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্য থেকে একজন খলীফা হবেন, উনার পর আবার আরো একজন খলীফা হবেন, এরূপ ধারাবাহিকভাবে খলীফা হতে থাকবেন এবং সম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করতে থাকবেন। এই মুবারক ধারাবাহিকতায়) যখন আমার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্য থেকে পঞ্চম খলীফা আলাইহিস সালাম তিনি (খলীফা হিসেবে প্রকাশ হবেন এবং সম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করে) মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করবেন, তখন ফিতনা শুরু হবে। অতঃপর ফিতনা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেতে থাকবে। আর এই ফিতনার মধ্যেই ষষ্ঠ ও সপ্তম খলীফা আলাইহিমাস সালাম উনারা দু’জন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করবেন। অতঃপর ফিতনা দিন দিন আরো বৃদ্ধি পেতে থাকবে। তারপর তা যখন প্রকটরূপ ধারণ করবে, তখন মহান খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি এসে সেটাকে মিটিয়ে দিবেন।” সুবহানাল্লাহ! (জামি‘উল আহাদীছ লিস সুয়ূত্বী ৩৫/৪৪৯, আল হাওই লিস সুয়ূত্বী ২/৭৯, আল ‘উরফ লিস সুয়ূত্বী ১/১৪৬, আল ফিতান ১/২১৭ ইত্যাদি )

অর্থাৎ সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, মুজাদ্দিদে আ‘যম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমাদের প্রাণের আক্বা, মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনিতো অবশ্যই অবশ্যই সারা পৃথিবীতে, সারা কায়িনাতে মহাসম্মানিত খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ মুবারক প্রতিষ্ঠা করবেনই এবং সুদীর্ঘ ৩০-৪০ বৎসর যাবৎ সারা পৃথিবীব্যাপী, সারা কায়িনাতব্যাপী মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করবেনই; শুধু তাই নয়, উনার পর উনার সুমহান আওলাদ, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম, সুলত্বনুন নাছীর, খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুল খলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদাহ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি খলীফা হবেন এবং তিনিও সুদীর্ঘ ৩০-৪০ বৎসর যাবৎ সারা পৃথিবীব্যাপী, সারা কায়িনাতব্যাপী মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করবেন। অতঃপর মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম, সুলত্বনুন নাছীর, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদাহ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার সুমহান আওলাদ আলাইহিস সালাম যিনি হবেন, তিনি খলীফা হবেন। এভাবে এই সম্মানিত খিলাফত মুবারক উনার মুবারক ধারাবাহিকতায় পঞ্চম জন যখন খলীফা হবেন এবং সম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করবেন, তখন ফিতনা দেখা দিবে এবং ফিতনা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেতে থাকবে। আর এই ফিতনার মধ্যেই ষষ্ঠ ও সপ্তম খলীফা আলাইহিমাস সালাম উনারা দুজন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করবেন।

অতঃপর ফিতনা দিন দিন আরো বৃদ্ধি পেতে থাকবে। তারপর যখন তা প্রকটরূপ ধারণ করবে, তখন মহান খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি খলীফা হিসেবে প্রকাশ পাবেন এবং সেই ফিতনাটাকে মিটিয়ে দিবেন। সুবহানাল্লাহ! উনাকে নতুন করে দুনিয়ার যমীনে সম্মানিত খিলাফত মুবারক কায়িম করতে হবে না। বরং সমস্ত খলীফাগণ উনাদের সাইয়্যিদ, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, মুজাদ্দিদে আ‘যম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমাদের প্রাণের আক্বা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনি সারা পৃথিবীব্যাপী, সারা কায়িনাতব্যাপী যেই মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারক জারি করবেন, সেই মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারকই উনার সুমহান আওলাদ, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম, সুলত্বনুন নাছীর, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদাহ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার এবং উনার পরবর্তী মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়ে হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার পর্যন্ত যেয়ে পৌঁছবে। সুবহানাল্লাহ! হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি সেই মুবারক ধারাবাহিকতায়ই খলীফা হবেন এবং উনার সময় যেই ফিতনাটা থাকবে, সেই ফিতনাটাকে তিনি মিটিয়ে দিবেন। উনাকে নতুন করে সম্মানিত খিলাফত মুবারক জারি করতে হবে না। সুবহানাল্লাহ!

উপরোক্ত মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের থেকে দিবালোকের ন্যায় অত্যন্ত সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো যে, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, মুজাদ্দিদে আ‘যম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমাদের প্রাণের আক্বা, মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনি তো অবশ্যই অবশ্যই সারা পৃথিবীতে, সারা কায়িনাতে মহাসম্মানিত খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ মুবারক প্রতিষ্ঠা করবেনই এবং সুদীর্ঘ ৩০-৪০ বৎসর যাবৎ সারা পৃথিবীব্যাপী, সারা কায়িনাতব্যাপী মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করবেনই; শুধু তাই নয়, উনার পর উনার সুমহান আওলাদ অর্থাৎ  যিনি সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, হাবীবাতুল্লাহ, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার সুমহান আওলাদ খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুল খলাফা, আবুল খুলাফা, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম, সুলত্বনুন নাছীর, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদাহ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি খলীফা হবেন এবং তিনিও সুদীর্ঘ ৩০-৪০ বৎসর যাবৎ সারা পৃথিবীব্যাপী, সারা কায়িনাতব্যাপী মহাসম্মানিত খিলাফত মুবারক পরিচালনা করবেন। অতঃপর উনার পরবর্তী মুবারক বংশধর অর্থাৎ  যিনি সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, হাবীবাতুল্লাহ, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার পরবর্তী মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়ে সেই সম্মানিত খিলাফত মুবারকই ১২তম খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছবে। আর তিনিও সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, মুজাদ্দিদে আ‘যম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমাদের প্রাণের আক্বা, মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার অর্থাৎ  যিনি সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, হাবীবাতুল্লাহ, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার মুবারক বংশধর হবেন। সুবহানাল্লাহ!

এই সকল আলোচনা থেকে এই বিষয়টি দিবালোকের ন্যায় অত্যন্ত সুস্পষ্টভাবে প্রতিভাত হলো যে, সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মাধ্যম দিয়ে যেমন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় নসবনামাহ মুবারক ক্বিয়ামত পর্যন্ত জারি থাকবেন তথা ক্বিয়ামত পর্যন্ত হযরত আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা দুনিয়ার যমীনে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নিবেন, তেমনিভাবে সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, হাবীবাতুল্লাহ, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার মাধ্যম দিয়েও সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, মুজাদ্দিদে আ‘যম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমাদের প্রাণের আক্বা, মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় নসবনামাহ মুবারক ক্বিয়ামত পর্যন্ত জারি থাকবেন তথা ক্বিয়ামত পর্যন্ত উনার মহাসম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনারা দুনিয়ার যমীনে তাশরীফ মুবারক নিবেন। সুবহানাল্লাহ! আর উম্মুল খুলাফা, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ক্বায়িম মাক্বামে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, হাবীবাতুল্লাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার অর্থাৎ আবুল খুলাফা, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্য থেকে উনার সুমহান আওলাদ ১১তম খলীফা, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনিতো অবশ্যই; শুধু তাই নয়, ১২তম খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি এবং কমপক্ষে আরো পাঁচ থেকে আটজন মহান খলীফা আলাইহিস সালাম হবেন। সুবহানাল্লাহ!

তবে ১১তম খলীফা, সাইয়্যিদুল খুলাফা, আবুল খুলাফা, খলীফাতুল উমাম, আল মানছূর হযরত শাহযাদা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি এবং ১২তম খলীফা হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি অর্থাৎ উনারা ব্যতীত বাকি পাঁচ থেকে আটজন মহান খলীফা আলাইহিস সালাম উনারা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে বর্ণিত ১২ জন আখাছ্ছুল খাছ মহান খলীফা আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্তর্ভুক্ত নন; কিন্তু উনারা সৎ ও ইনসাফগার খলীফা হবেন। উনারাও মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অর্থাৎ উনাদের কর্তৃক মনোনীত। সুবহানাল্লাহ!

অর্থাৎ সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত হযরত আওলাদ আলাইহিমু সালাম তথা হযরত আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়ে যেমন জিন-ইনসান ক্বিয়ামত পর্যন্ত নি‘য়ামত মুবারক লাভ করবে, নাজাত লাভ করবে, মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অর্থাৎ উনাদের হাক্বীক্বী মুহব্বত-মা’রিফত, নিসবত-কুরবত, রেযামন্দি-সন্তুষ্টি মুবারক লাভ করবে, ইহকাল-পরকালে হাক্বীক্বী কামিয়াবী হাছিল করবে, তেমনি সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, উম্মুল মুরিদীন, উম্মুল উমাম, উম্মুল খুলাফা সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম অর্থাৎ আবুল খুলাফা, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম মাক্বামে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার মহাসম্মানিত হযরত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম তথা উনার পরবর্তী মুবারক বংশধর আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যম দিয়েও জিন-ইনসান ক্বিয়ামত পর্যন্ত নি‘য়ামত মুবারক লাভ করবে, নাজাত লাভ করবে, মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অর্থাৎ উনাদের হাক্বীক্বী মুহব্বত-মা’রিফত, নিসবত-কুরবত, রেযামন্দি-সন্তুষ্টি মুবারক লাভ করবে, ইহকাল-পরকালে হাক্বীক্বী কামিয়াবী হাছিল করবে। সুবহানাল্লহ!

সুতরাং উপরোক্ত দলীলভিত্তিক বর্ণনা দ্বারা অত্যন্ত সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো যে, সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন ক্বায়িম মাক্বামে সাইয়্যিদাতুন নিসাই ‘আলাল আলামীন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ্, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম। সুবহানাল্লাহ!

-মুহাদ্দিছ মুহম্মদ ইবনে ছিদ্দীক্ব।

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সম্মানিত সম্বোধন মুবারক করার বিষয়ে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার পৃথিবীর ইতিহাসে নযীরবিহীন এক অনন্য বেমেছাল অভুতপূর্ব চির বিস্ময়কর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র তাজদীদ মুবারক

সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সাথে অন্য কারো তুলনা করা কুফরী

মুহব্বত, ইতায়াত ও সন্তুষ্টি মুবারকের মূলেই হচ্ছেন সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম

ছাহিবু ক্বাবা ক্বওসাইনি আও আদনা, আকরামুল আউওয়ালীন ওয়াল আখিরীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার বেমেছাল সম্মানিত তা‘য়াল্লুক-নিসবত মুবারক

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত শান মুবারক-এ ব্যবহৃত ‘মুত্বহ্হার এবং মুত্বহ্হির’ সম্মানিত লফয মুবারক উনাদের সম্মানিত অর্থ এবং তাৎপর্য মুবারক