সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, বিনতু খইরি বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আন নূরুল ঊলা আলাইহাস সালাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত সংক্ষিপ্ত জীবনী মুবারক

সংখ্যা: ২৭৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

সম্মানিত পরিচিতি মুবারক:

সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিতা সিব্ত্বতুন (নাতনী) আলাইহাস সালাম। সুবহানাল্লাহ! তিনি হচ্ছেন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মহাসম্মানিত বানাত উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিতা বানাত (মেয়ে) আলাইহাস সালাম। সুবহানাল্লাহ! উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক হচ্ছেন ‘সাইয়্যিদাতুনা হযরত উমামাহ আলাইহাস সালাম’। সুবহানাল্লাহ! তিনি সকলের মাঝে সিব্ত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতে যুন নূর আলাইহাস সালাম হিসেবে পরিচিতি মুবারক গ্রহণ করেছেন। তিনি হচ্ছেন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্যে বিশেষ ব্যক্তিত্বা মুবারক। সুবহানাল্লাহ! তিনি শুধু মহান আল্লাহ পাক তিনি নন এবং উনার মাহবূব হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নন; এছাড়া সমস্ত শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক উনাদের অধিকারিণী হচ্ছেন তিনি। সুবহানাল্লাহ! উনার সম্মানিত মুহব্বত মুবারকই হচ্ছেন সম্মানিত ঈমান। সুবহানাল্লাহ!

সিব্ত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিতা আম্মাজান হচ্ছেন উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! আর মহাসম্মানিত আব্বাজান আলাইহিস সালাম হচ্ছেন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূর আলাইহিস সালাম। সুবহানাল্লাহ! তিনি ছিলেন উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার আপন বোন হযরত হালাহ বিনতে খুওয়াইলিদ রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহা উনার মহাসম্মানিত আওলাদ আলাইহিস সালাম। সুবহানাল্লাহ! অর্থাৎ তিনি হচ্ছেন উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আপন খালাতো ভাই। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময়

বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ:

শি’বে আবী ত্বালিব থেকে প্রত্যাবর্তন করার পর দুনিয়াবী দৃষ্টিতে বা হিসেবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত বয়স মুবারক যখন ৪৯ বছর ৬ মাস ৫ দিন তখন উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশের পরবর্তী বছর ২৭ শে রজবুল হারাম শরীফ ইয়াওমুল ইছনাইনিল ‘আযীম শরীফ আনুষ্ঠানিকভাবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মি’রাজ শরীফ সংঘটিত হন। সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মি’রাজ শরীফ সংঘটিত হওয়ার পরের দিন ২৮শে রজবুল হারাম শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা শরীফ শরীফ সিব্ত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! তখন দুনিয়াবী দৃষ্টিতে বা হিসেবে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত বয়স মুবারক ৫০তম বছর মুবারক পার হয়ে ৫১তম বছর মুবারক চলাকালীন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশের সম্মানিত ও পবিত্র

স্থান মুবারক

যেই সম্মানিত ও পবিত্র বাড়ী মুবারক-এ সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আযীমুশ শান নিসবতে আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হয়েছিলেন, উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি সেই সম্মানিত ও পবিত্র বাড়ী রেখে উনার ভাতিজা হাকীম ইবনে হিজাম উনার থেকে একটা বাড়ী কিনে সেখানে চলে আসেন। সুবহানাল্লাহ! সেখানে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নিয়ে সম্মানিত অবস্থান করেন। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত হিজরত মুবারক করা পর্যন্ত সেই সম্মানিত হুজরা শরীফ-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেছেন। সুবহানাল্লাহ! আর পূর্বের যেই বাড়ী মুবারক ছিলেন অর্থাৎ যেই সম্মানিত ও পবিত্র হুজরা শরীফ-এ সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আযীমুশ শান নিসবতে আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হয়েছিলেন, সেটা উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি বিনতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আযীমুশ শান নিসবতে আযীম শরীফ উনার সময় উনাকে সম্মানিত হাদিয়া মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! সেই সম্মানিত বাড়ী মুবারক-এ সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূর আলাইহিস সালাম তিনি এবং আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অর্থাৎ উনারা সম্মানিত অবস্থান মুবারক করতেন। সুবহানাল্লাহ! সেই সম্মানিত ও পবিত্র বাড়ী মুবারকেই সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘ফালইয়াফরাহূ শরীফ’ সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নাতী-নাতনী আলাইহিমুস সালাম ও আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মধ্যে সিব্ত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনিই সর্বপ্রথম মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! তাহলে উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কতটুকু মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘ফালইয়াফরহূ শরীফ’ সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করেছেন, সেটা সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম কায়িনাতবাসী সকলের চিন্তা ও কল্পনার উর্ধ্বে। সুবহানাল্লাহ!

কাজেই সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম কায়িনাতবাসী সকলের জন্য ফরযে আইন হচ্ছেন সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে অনুসরণ মুবারক করে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৮ শে রজবুল হারাম শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘ফালইয়াফরহূ শরীফ’ সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা। সুবহানাল্লাহ!

সম্মানিত আক্বীক্বা মুবারক দেয়া এবং সম্মানিত

ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক রাখা:

সিব্ত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশের ৭ম দিনে উনার পক্ষ থেকে সম্মানিত আক্বীক্বা মুবারক দেয়া হয় এবং উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক রাখা হয় ‘সাইয়্যিদাতুনা হযরত উমামাহ আলাইহিস সালাম’। সুবহানাল্লাহ!

সম্মানিত লক্বব মুবারক:

সিব্ত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মালিকাতুল জান্নাহ, মালিকাতুল কায়িনাত, সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি ‘আলাল ‘আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ ইত্যাদি ইত্যাদি। সুবহানাল্লাহ!

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল সম্মানতি মুহব্বত, আদর, স্নেহ মুবারক

সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল মুহব্বত, আদর, স্নেহ মুবারক পেয়েছেন এবং তিনি উনার মহাসম্মানিত নানাজান সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত তত্ত্বাবধান মুবারক-এ বেড়ে উঠেন। সুবহানাল্লাহ!

কিতাবে বর্ণিত রয়েছে-

كَانَ النَّبِـىُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يُـحِبُّ سَيِّدَتَنَا حَضْرَتْ بِنْتَ ذِى النُّوْرِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتَنَا حَضْرَتْ اُمَامَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ) وَيَنْشَرِحُ صَدْرُهٗ سُرُوْرًا بِـمَرْءَاهَا.

অর্থ: “নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনাকে অনেক সম্মানিত মুহব্বত মুবারক করতেন এবং উনাকে দেখার সাথে সাথে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল ইলম মুবারক (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বুক মুবারক), অন্তর মুবারক আনন্দে ভরে যেতেন।” সুবহানাল্লাহ!

সম্মানিত হিজরত মুবারক:

যখন উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ২ হিজরী সনের সম্মানিত ও পবিত্র যিলক্বদ শরীফ মাসে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মদীনা শরীফ-এ সম্মানিত হিজরত মুবারক করেন, তখন সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি এবং উনার মহাসম্মানিত ভাই সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে যুন নূর আলাইহিস তিনি অর্থাৎ উনারাও উনার মহাসম্মানিত আম্মাজান আলাইহাস সালাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মদীনা শরীফ-এ সম্মানিত হিজরত মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! তখন সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত বয়স মুবারক ছিলেন ৩ বছর ৩ মাসের চেয়েও অধিক। সুবহানাল্লাহ!

এককভাবে মুহব্বত মুবারক লাভ

উল্লেখ্য যে, সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ৩য় হিজরী সনের ১৫ই রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুল আরবিয়া শরীফ বা’দ আছর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! এর পূর্ব পর্যন্ত সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি, সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে যুন নূর আলাইহিস সালাম তিনি এবং সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি অর্থাৎ উনারা এককভাবে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত মুহব্বত মুবারক লাভ করেন। সুবহানাল্লাহ!

কিতাবে বর্ণিত রয়েছে-

رُبَـمَا اِنَّـهَا تَعَلَّقَتْ بِـجَدِّهَا صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَاَرَادَ اَنْ يَّطِيْبَ نَفْسَهَا.

অর্থ: “সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি প্রায় সময় উনার মহাসম্মানিত নানাজান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে ঝুলে থাকতেন অর্থাৎ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল আযহার মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কোল মুবারক-এ) এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরেুন নুবুওওয়াহ্ মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কাঁধ মুবারক-এ) থাকতেন। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার মন তুষ্ট মুবারক করার ইচ্ছা করতেন। অর্থাৎ তিনি যে অবস্থায় ছিলেন সে অবস্থায় রেখে উনাকে সন্তুষ্ট মুবারক করতেন।” সুবহানাল্লাহ! (শরহে রিয়াদ্বুছ ছলিহীন)

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুন নুবুওওয়াহ মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কাঁধ মুবারক-এ) নিয়ে সম্মানিত ছলাত মুবারক

আদায় করা

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عَنْ حَضْرَتْ اَبِـىْ قَتَادَةَ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ بَيْنَا نَـحْنُ فِـى الْمَسْجِدِ جُلُوْسٌ خَرَجَ عَلَيْنَا رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَـحْمِلُ سَيِّدَتَنَا حَضْرَتْ بِنْتَ ذِى النُّوْرِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتَنَا حَضْرَتْ اُمَامَةَ بِنْتَ اَبِـى الْعَاصِ بْنِ الرَّبِيْعِ عَلَيْهِمَا السَّلَامُ) وَاُمُّهَا اَلنُّوْرُ الْاُوْلٰـى سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ خَيْرُ وَاَفْضَلُ بَنَاتِ رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ (سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ زَيْنَبُ بِنْتُ رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ) وَهِىَ صَبِيَّةٌ يَّـحْمِلُهَا عَلـٰى عَاتِقِهٖ فَصَلّٰى رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَهِىَ عَلـٰى عَاتِقِهٖ يَضَعُهَا اِذَا رَكَعَ وَيُعِيْدُهَا اِذَا قَامَ حَتّٰـى قَضٰى صَلَاتَهٗ يَفْعَلُ ذٰلِكَ بـِهَا.

অর্থ: “হযরত আবূ ক্বাতাদাহ রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা আমরা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মসজিদে নববী শরীফ-এ উপস্থিত থাকাকালে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতে যিন নূর আলাইহাস সালাম উনাকে নিয়ে আমাদের নিকট সম্মানিত তাশরীফ মুবারক গ্রহণ করেন, উনার মহাসম্মানিত আম্মাজান ছিলেন আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফযালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! এ সময় (সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতে যিন নূর আলাইহাস সালাম) তিনি দুনিয়াবী দৃষ্টিতে অল্প বয়স মুবারক উনার অধিকারী (ছোট) ছিলেন। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনাকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুন নুবুওওয়াহ মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কাঁধ মুবারক-এ) নিয়ে আসেন এবং উনাকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুন নুবুওওয়াহ মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কাঁধ মুবারক-এ) নিয়েই সম্মানিত নামায মুবারক আদায় করেন। সুবহানাল্লাহ! তিনি যখন সম্মানিত রুকু মুবারক করতেন, তখন উনাকে পাশে রাখতেন। আর যখন সম্মানিত ক্বিয়াম মুবারক করতেন, তখন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুন নুবুওওয়াহ মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কাঁধ মুবারক-এ) তুলে নিতেন। সুবহানাল্লাহ! এভাবেই তিনি উনার সম্মানিত নামায মুবারক শেষ করেন।” সুবহানাল্লাহ! (মুসলিম, আবূ দাঊদ, নাসাঈ, মুসনাদে আহমদ, ইবনে হিব্বান, শু‘য়াবুল ঈমান ইত্যাদি)

উপরোক্ত মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফসমূহ উনার মাধ্যমে অত্যন্ত সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয় যে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনাকে কতো বেমেছাল মুহব্বত মুবারক করতেন, আদর  মুবারক করতেন। যার কারণে তিনি সম্মানিত নামায মুবারক আদায় করা অবস্থায়ও উনাকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুন নুবুওওয়াহ মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কাঁধ মুবারক-এ) নিতেন। সুবহানাল্লাহ! তাহলে উনার সম্মানিত শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক কতো বেমেছাল সেটা সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম কায়িনাতবাসী সকলের চিন্তা ও কল্পনার উর্ধ্বে। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্যে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট সর্বাধিক প্রিয়

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রিয়পাত্র উনাদের মধ্যে সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি অন্যতম। সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عَنْ اُمِّ الْمُؤْمِنِيْـنَ الثَّالِثَةِ سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ اَلصِّدِّيْقَةِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ عَائِشَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ) قَالَتْ اُهْدِىَ لِرَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قِلَادَةٌ مِّنْ جَزْعٍ مُّلَمَّعَةٌ ۢبِالذَّهَبِ وَنِسَاؤُهٗ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مُـجْتَمِعَاتٌ فِـىْ بَيْتٍ كُلُّهُنَّ عَلَيْهِنَّ السَّلَامُ وَسَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ بِنْتُ ذِى النُّوْرِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ اُمَامَةُ بِنْتُ اَبِـى الْعَاصِ بْنِ الرَّبِيْعِ عَلَيْهَا السَّلَامُ) جَارِيَةٌ تَلْعَبُ فِـىْ جَانِبِ الْبَيْتِ بِالتُّرَابِ فَقَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَيْفَ تَرَيْنَ هٰذِهٖ فَنَظَرْنَا اِلَيْهَا فَقُلْنَا يَا رَسُوْلَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مَا رَاَيْنَا اَحْسَنَ مِنْ هٰذِهٖ قَطُّ وَلَا اَعْجَبَ فَقَالَ ارْدُدْنَهَا اِلَـىَّ فَلَمَّا اَخَذَهَا قَالَ وَاللهِ لَاَضَعَنَّهَا فِـىْ رَقَبَةِ اَحَبِّ اَهْلِ الْبَيْتِ اِلَـىَّ قَالَتْ اُمُّ الْمُؤْمِنِيْـنَ الثَّالِثَةُ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ اَلصِّدِّيْقَةُ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ عَائِشَةُ عَلَيْهَا السَّلَامُ) فَاَظْلَمَتْ عَلَـىَّ الْاَرْضُ بَيْنِـىْ وَبَيْنَهٗ خَشْيَةَ اَنْ يَّضَعَهَا فِـىْ رَقَبَةِ غَيْـرِىْ مِنْهُنَّ وَلَا اَرَاهُنَّ اِلَّا اَصَابَهُنَّ مِثْلَ الَّذِىْ اَصَابَنِـىْ وَوَجَـمْنَا جَـمِيْعًا سُكُوْتًا فَاَقْبَلَ بِـهَا حَتّٰـى وَضَعَهَا فِـىْ رَقَبَةِ سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ بِنْتِ ذِى النُّوْرِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ اُمَامَةَ بِنْتِ اَبِـى الْعَاصِ عَلَيْهَا السَّلَامُ) فَسُرِّىَ عَنَّا.

অর্থ: “উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বাহ আলাইহাস সালাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ আকীকজাতীয় বিশেষ মণি দ্বারা তৈরি, যা স¦র্ণ মিশ্রিত বা স¦র্ণ দ্বারা আবৃত এরূপ একখানা দামি সম্মানিত হার মুবারক হাদিয়া মুবারক এসেছিলো। তখন হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা সকলেই সম্মানিত ও পবিত্র হুজরা শরীফ-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক করছিলেন। তখন সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর ইবনে রবী’ আলাইহাস সালাম উনার দুনিয়াবী দৃষ্টিতে অল্প বয়স মুবারক ছিলেন। ফলে তিনি সম্মানিত ও পবিত্র হুজরা শরীফ উনার পার্শ্বে মাটি নিয়ে নাড়াচাড়া করছিলেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সবাইকে উদ্দেশ্য করে ইরশাদ মুবারক করলেন, আপনারা এই সম্মানিত হার মুবারক উনাকে কিরূপ দেখছেন? তারপর আমরা সকলেই সম্মানিত হার মুবারক উনার দিকে তাকালাম এবং বললাম, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমরা এই সম্মানিত হার মুবারক উনার মতো এরূপ অবাক করা অধিক সুন্দর হার কখনো দেখিনি। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, আপনারা সম্মানিত হার মুবারকখানা আমার নিকট নিয়ে আসুন। তারপর তিনি সম্মানিত হার মুবারকখানা নিয়ে বললেন, নিশ্চয়ই যিনি আমার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্যে আমার নিকট সর্বাধিক প্রিয়, উনার সম্মানিত গলা মুবারক-এ আমি এই সম্মানিত হার মুবারকখানা পরিয়ে দিবো। সুবহানাল্লাহ! উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বাহ আলাইহাস সালাম তিনি বলেন, অতঃপর আমার উপর যমীন অন্ধকারাচ্ছন্ন হলো, আমার এবং উনার মাঝে, এই চিন্তায় যে, তিনি আমি ব্যতিত অন্য কোনো উম্মুল মু’মিনীন আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত গলা মুবারক-এ এই সম্মানিত হার মুবারকখানা পরিয়ে দেন কিনা। আমি দেখলাম যে, আমার উপর যা আপতিত হয়েছে, অন্য সকল হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের উপরও তা আপতিত হয়েছে। আমরা প্রত্যেকেই পরিপূর্ণরূপে নিশ্চুপ হয়ে গেলাম। অতঃপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত হার মুবারকখানা এনে সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত গলা মুবারক-এ পরিয়ে দিলেন। সুবহানাল্লাহ! তারপর আমরা প্রত্যেকেই আনন্দিত হলাম, খুশি মুবারক প্রকাশ করলাম।” সুবহানাল্লাহ! (আল মু’জামুল কাবীর লিত্ব ত্ববারনী ২২/৪৪২, মাজমাউয যাওয়াইদ ৯/২৫৪, সিমতুন নুজূম ১/২১৪, সুবুলুল হুদা ওয়ার রশাদ ১১/৩২)

মহাসম্মানিত নানাজান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত ও পবিত্র হুজরা

শরীফ-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক

উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ৮ম হিজরী সনের ৮ই মুহাররমুল হারাম শরীফ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম ইশরাকের ওয়াক্তে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! উনার মহাসম্মানিত যাওজুম মুকাররাম সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূর ইবনে রবী’ আলাইহিস সালাম তিনি কোন শাদী মুবারক করেননি। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি উনার মহাসম্মানিতা আম্মাজান আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশের পর উনার মহাসম্মানিত নানাজান নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে উনারই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হুজরা শরীফ-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক করতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

কিতাবে বর্ণিত রয়েছে-

لَيَجِدُ فِـىْ حَفِيْدَتِهٖ سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ بِنْتِ ذِى النُّوْرِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ اُمَامَةَ بِنْتِ اَبِـى الْعَاصِ عَلَيْهَا السَّلَامُ) مَا يُـخَفَّفُ مِنْ حُزْنِهٖ عَلٰى فِرَاقِ ابْنَتِهٖ اَلنُّوْرِ الْاُوْلٰـى سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ خَيْـرِ وَاَفْضَلِ بَنَاتِ رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ (سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ زَيْنَبَ بِنْتِ رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ).

অর্থ: “অবশ্যই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার মহাসম্মানিতা সিবত্বতুন সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার মধ্যে এমন কিছু পেতেন যা উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফজালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত জুদায়ী মুবারক উনার কারণে যে কষ্ট অনুভব হতো তা হালকা করে দিতো।” সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত আযীমুশ শান প্রথম

নিসবতে আযীম শরীফ:

কিতাব-এ বর্ণিত রয়েছে-

وَلَـمَّا كَبُرَتْ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ بِنْتُ ذِى النُّوْرِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ اُمَامَةُ بِنْتُ اَبِـى الْعَاصِ عَلَيْهَا السَّلَامُ) تَزَوَّجَهَا سَيِّدُنَا حَضْرَتْ اَلْاِمَامُ الْاَوَّلُ مِنْ اَهْلِ بَيْتِ رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ (سَيِّدُنَا حَضْرَتْ عَلِىُّ بْنُ اَبِـىْ طَالِبٍ كَرَّمَ اللهُ وَجْهَهٗ عَلَيْهِ السَّلَامُ) بَعْدَ مَوْتِ النُّوْرِ الرَّابِعَةِ سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ اَلزَّهْرَاءِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ) وَكَانَتْ اَلنُّوْرُ الرَّابِعَةُ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ اَلزَّهْرَاءُ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةُ عَلَيْهَا السَّلَامُ) وَصَّتْ سَيِّدَنَا حَضْرَتْ اَلْاِمَامَ الْاَوَّلَ مِنْ اَهْلِ بَيْتِ رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ (سَيِّدَنَا حَضْرَتْ عَلِيًّا كَرَّمَ اللهُ وَجْهَهٗ عَلَيْهِ السَّلَامُ) اَنْ يَّـتَزَوَّجَهَا فَلَمَّا تُـوُفِّـيَتْ اَلنُّوْرُ الرَّابِعَةُ سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ اَلزَّهْرَاءُ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتُنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةُ عَلَيْهَا السَّلَامُ) تَزَوَّجَهَا.

অর্থ: “আর যখন সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি বড় হন, তখন সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি উনাকে সম্মানিত নিসবতে আযীম শরীফ করেন। কেননা উম্মু আবীহা আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনাকে সম্মানিত ওছীয়ত মুবারক করেছিলেন যে, উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ পাওয়ার পর তিনি যেন সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনাকে সম্মানিত নিসবতে আযীম শরীফ করেন। সুবহানাল্লাহ! তাই উম্মু আবীহা আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করার পর সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনাকে সম্মানিত নিসবতে আযীম শরীফ করেন।” সুবহানাল্লাহ! (উসদুল গবাহ ৬/২২)

উল্লেখ্য সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনার মাধ্যমে সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার কোন মহাসম্মানিত আওলাদ আলাইহিস সালাম মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেননি।

মহাসম্মানিত আযীমুশ শান দ্বিতীয়

নিসবতে আযীম শরীফ:

সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি ৪০ হিজরী সনের ১৭ই রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুস সাবত শরীফ আছরের সময় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় শাহাদাতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় শাহাদাতী শান মুবারক প্রকাশ করার পর সাইয়্যিদুনা হযরত মুগীরাহ ইবনে নাওফিল আলাইহিস সালাম তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনাকে সম্মানিত নিসবতে আযীম শরীফ করেন। সুবহানাল্লাহ! তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত জাদ্দু রসূল্লিাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আওলাদ সাইয়্যিদুল হযরত হারিছ আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিত নাতী আলাইহিস সালাম। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত আওলাদ আলাইহিস সালাম

৪৩ হিজরী শরীফ-এ সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার একজন মহাসম্মানিত আওলাদ আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! উনার সম্মানিত ইসম বা নাম মুবারক হচ্ছেন সাইয়্যিদুনা হযরত ইয়াহইয়া আলাইহিস সালাম। সুবহানাল্লাহ!

উনার সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক অনুযায়ী হযরত মুগীরাহ আলাইহাস সালাম তিনি হযরত আবূ ইয়াহইয়াহ আলাইহিস সালাম সম্মানিত কুনিয়াত মুবারক গ্রহণ করেছিলেন। সুবহানাল্লাহ! তিনি দুনিয়াবী দৃষ্টিতে অল্প বয়স মুবারকেই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইয়াহইয়া আলাইহিস সালাম তিনি ব্যতীত সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম উনার অন্য কোন আওলাদ ছিলেন না।

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী

শান মুবারক প্রকাশ:

সিবত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতে যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত মুগীরা আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিত ও পবিত্র হুজরা শরীফ থাকা অবস্থায় ৪৫ হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ২৭শে ছফর শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ (ইওয়ামুল ইছনাইনিল ‘আযীম শরীফ) মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! তিনি দুনিয়ার যমীনে ৪৫ বছর ৬ মাস ২৯ দিন সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

-মুহাদ্দিছ মুহম্মদ ইবনে মারইয়াম।

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সম্মানিত সম্বোধন মুবারক করার বিষয়ে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার পৃথিবীর ইতিহাসে নযীরবিহীন এক অনন্য বেমেছাল অভুতপূর্ব চির বিস্ময়কর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র তাজদীদ মুবারক

সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সাথে অন্য কারো তুলনা করা কুফরী

মুহব্বত, ইতায়াত ও সন্তুষ্টি মুবারকের মূলেই হচ্ছেন সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম

ছাহিবু ক্বাবা ক্বওসাইনি আও আদনা, আকরামুল আউওয়ালীন ওয়াল আখিরীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার বেমেছাল সম্মানিত তা‘য়াল্লুক-নিসবত মুবারক

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত শান মুবারক-এ ব্যবহৃত ‘মুত্বহ্হার এবং মুত্বহ্হির’ সম্মানিত লফয মুবারক উনাদের সম্মানিত অর্থ এবং তাৎপর্য মুবারক