হালাল-হারাম নিয়ে নানা কথা-২

সংখ্যা: ২৪৯তম সংখ্যা | বিভাগ:

হালাল-হারাম নিয়ে নানা কথা-২


পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “হালালও স্পষ্ট, হারামও স্পষ্ট।”

যেগুলো সম্মানিত শরীয়ত উনার মাঝে হারাম- তা পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মাঝে বর্ণিত হয়েছে। অর্থাৎ সেগুলো ছাড়া বাকী সব হালাল।

তবে সাধারণত খাদ্যদ্রব্যে এবং প্রসাধনী দ্রব্যে যে উপাদানগুলো ব্যবহার হলে তা খাওয়ার অনুপযুক্ত বা ব্যবহারের অনুপযুক্ত হয় আমরা সেগুলো নিয়েই আলোচনা করবো। ইনশাআল্লাহ!

সাধারণত প্রধান দুই কারণে খাদ্যদ্রব্য এবং প্রসাধনী প্রব্যসমূহ হারাম হয়ে থাকে।

১) এলকোহলের উপস্থিতি

২) হারাম বস্তু থেকে সংগৃহীত উপাদানসমূহের উপস্থিতি।

এলকোহল বা শরাব :

মানুষ যে এলকোহল বা শরাব খেয়ে নেশা করে তাকে বলে ইথাইল এলকোহল বা ইথানল। ইন্ডাস্ট্রিতে যখন ইথাইল এলকোহল ব্যবহার করা হয় তখন সেটা খেয়ে যাতে শ্রমিক শ্রেণী নেশা করতে না পারে তাই এক ধরনের বিষাক্ত দ্রব্য ইথাইল এলকোহলে মিশিয়ে দেয়া হয়। সেই বিষাক্ত উপাদান যুক্ত এলকোহলকে বলা হয় denatured alcohol বা SD alcohol. এই বিষাক্ত উপাদান মেশানোর কারণে কেবল ইথাইলে এলকোহল খাওয়ার অনুপযুক্ত হয় কিন্তু তাতে ইথাইল এলকোহল বা ইথানলের গুণাগুণের কোনো পরিবর্তন হয় না। তাই এই denatured alcohol বা SD alcohol যুক্ত দ্রব্য ব্যবহার করা জায়িয নেই। ফলে কোনো প্রোডাক্টে denatured alcohol বা SD alcohol লেখা থাকলে তা বর্জনীয়।

শরীয়ত সম্মত কারণ :

সম্মানিত শরীয়ত অনুযায়ী এলকোহল বা শরাব পান করা হারাম এবং নাপাকের অন্তর্ভুক্ত। আর তা হারাম হবার পেছনে মূল কারণ এটি পান করলে নেশা হয়। ফলে বিষাক্ত উপাদান মিশ্রিত করলেও ইথাইল এলকোহলের নেশা জাতীয় গুণাগুণ নষ্ট হয় না; ফলে তা নাপাকের অন্তর্ভুক্তই থাকে। সে কারণে এই denatured alcohol বা   SD alcohol  যুক্ত দ্রব্য ব্যবহার করা জায়িয নেই।

কোনো প্রোডাক্ট কিনে উপাদানগুলো যখন দেখবেন তখন কোথাও এলকোহল লেখা দেখলেই ভয় পাবার কিছু নেই। কোথাও ইথাইল এলকোহল বা ইথানল, মিথাইল এলকোহল বা মিথানল, denatured alcohol বা SD alcohol লেখা থাকলে সে প্রোডাক্টগুলো ব্যবহার করা যাবে না।

কিন্তু যে এলকোহলগুলোতে শরাবের কোনো বৈশিষ্ট্য নেই, কিন্তু নামের শেষে এলকোহল আছে, সেগুলো ব্যবহারে সমস্যা নেই। যেমন- Beûyl Alcohol, Stearyl Alcohol, Cetearyl Alcohol, ¸ristyl Alcohol, Beheûl Alcohol, Cetyl Alcohol, Sugar Alcohol, Lauryl Alcohol, Oleyl Alcohol ইত্যাদি। এগুলো প্রোডাক্টকে চকচকে করতে, প্রলেপ দিতে, ক্রীম বানাতে, ঘন করতে, পিচ্ছিল করতে, মিষ্টি বাড়াতে ব্যবহৃত হয়।

হারাম বস্তু থেকে সংগৃহীত উপাদান সমূহের উপস্থিতির কারণে খাদ্য দ্রব্য ও প্রসাধনী দ্রব্যসমূহ কখনো হারাম হয়ে থাকে আবার কখনো হালাল হয়ে থাকে। হারাম থেকে সংগৃহীত উপাদান দ্বারা প্রস্তুতকৃত কোন খাদ্য দ্রব্য বা প্রসাধনী দ্রব্য হারাম হবে এটাই স্বাভাবিক কিন্তু কখন হালাল হয় সেটা বুঝলেই সব বোঝা হয়ে যাবে এবং আমাদের জীবন ধারন সহজ হয়ে যাবে।

সম্মানিত শরীয়ত উনার মধ্যে বর্ণিত আছে যখন কোন লবণের খনিতে কোন বিড়াল বা কুকুর বা অন্য কোন প্রাণী পড়ে মরে থাকে আর যখন সেটা এক সময় লবণে পরিণত হয় তখন সে লবন হালাল, যদিও উৎসটি হারাম। কারণ হচ্ছে সেই লবণের মধ্যে হারাম প্রাণীর কোন বৈশিষ্ট্য খুঁজে পাওয়া যায়না। এখান থেকে যে সুত্র তৈরি হয়েছে তা হচ্ছে “কোন হারাম উৎস থেকে কোন উপাদান প্রস্তুত হলে যদি তার গুনগত পরিবর্তন এমন হয় যে সেখানে মূল উৎস বা বস্তুর কোন গুণাগুণ থাকে না তবে সেই হারাম বস্তু থেকে সংগৃহীত উপাদানটি হালাল”।

একটি চিত্র আপনাদের সামনে তুলে ধরছি। ধরুন কেউ খুব আইসক্রিম খেয়ে ঠাণ্ডা বাধিয়ে জ্বরে পড়লো। জ্বর থাকায় সকালের নাস্তা খেলেন পাউরুটির মধ্যে জেলী লাগিয়ে তারপর খেলেন জ্বরের ট্যাবলেট। দুপুরে ডাক্তার বললেন সুপ খাওয়াতে, আজকাল ইনস্টেন্ট সুপ পাওয়া যায় তাই কিনে খাওয়ানো হল। কেও বললো দই খাওয়ালে পেট ঠাণ্ডা থাকবে ফলে এখন সব শপিং মলে Yoghurt বা দই পাওয়া যায় রোগীকে সেই দই এনেও খাওয়ানো হল।

এই রোগী যতগুলো আইটেম খেলেন যেমন আইসক্রিম, জেলী, ট্যাবলেট, সুপ, দই এই প্রতিটি আইটেমে থাকতে পারে বা অধিকাংশ সময় রয়েছে জিলাটিন। তাহলে আপনিই বলুন সে রোগী কি তাহলে সব হারাম খেয়েছে। কারণ জিলাটিন তৈরি হয় প্রাণীর হাড়ের কোলাজেন থেকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে শূকর এবং গরুর হাড় থেকে। আপনি যদি ভাবেন গরু হলে সমস্যা নেই, তা কিন্তু না। হালাল উপায়ে যবেহকৃত গরু থেকে নেয়া জিলাটিন আলাদা করে পাওয়া কঠিন। আর ব্যবসায়ীরা মুনাফার জন্য সস্তা সোর্স ব্যবহার করতে পছন্দ করে ফলে শূকরের হাড় থেকে তৈরি জিলাটিনে বাজার সয়লাব। অনলাইনে লেখা পড়ে আপনি কিন্তু এ বিষয়ে কোন সমাধান পাবেন না। এর সমাধান হচ্ছে জিলাটিন হালাল। কারণ হাড়ের কোলাজেন থেকে যে পদ্ধতিতে জিলাটিন প্রস্তুত করা হয় পরবর্তীতে জিলাটিনের মধ্যে Intramolecular Change আসে সেখানে কোলাজেনের কোন বৈশিষ্ট্য উপস্থিতি থাকেনা। ফলে জিলাটিন শূকর থেকে প্রস্তুত হলেও তা হালাল। (চলবে)


-ফার্মাসিস্ট আল্লামা মুহম্মদ রুহুল হাসান

‘ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’ ব্যবহার সম্পর্কে এক চরম জাহিল, গণ্ডমূর্খ, মিথ্যাবাদী, মুনাফিক্ব, ধোঁকাবাজ এবং প্রতারকের জিহালতী, মূর্খতা, মিথ্যাচার, ধোঁকা, প্রতারণা ও অপব্যাখ্যার দলীলভিত্তিক দাঁতভাঙ্গা জবাব-১

প্রসঙ্গ: গণপরিবহন ভাড়া ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি সরকার সৃষ্ট লকডাউন পরিস্থিতিতে শ্রমিক-মালিকদের ক্ষতির দায়ভার কেন জনগনের কাধে চাপানো হবে? জনগনের উপর ভাড়ার খড়গ না চাপিয়ে পরিবহন খাতে প্রণোদনা ও বাজেট বিশেষত শৃঙ্খলা তৈরী করে এর সুফল জনগনকে দিতে হবে।

১৯৪৭ সালের বেনিয়া বৃটিশদের দেশবিভক্তির দোহাই দিয়ে এখন পার্বত্য চট্টগ্রামকে ভারতের ভূখন্ড দাবী করছে উপজাতি সন্ত্রাসীরা। নেপথ্যে, বাংলাদেশ থেকে ৩ জেলাকে আলাদা করে স্বাধীন সন্ত্রাসবাদী জুম্মল্যান্ড গঠন করা। সরকারের উচিত তড়িৎ এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে শক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

বাংলাদেশের ৫০ হাজার একরের বেশি জমি ভারতের দখলে। উদ্ধারে নেই সরকারের সক্রিয়তা। এই বিপুল পরিমাণ ভূমি ভারতের হাতে দখল দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ত্বের উপর মারাত্মক হুমকি। সরকার সজাগ হবে কবে?

করোনা ভাইরাসের গুজবে দেশ ও জাতি কি করুন পরিণতির দিকে যাচ্ছে। সরকারের কর্তাব্যক্তি ও তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরা তা উপলব্ধি করতে হঠকারিতামূলক অজ্ঞতার পরিচয় দিচ্ছে। দেশের হতদরিদ্র, দরিদ্র, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের চরম দুদর্শায় ফেলে সরকার সংবিধানের খেলাপ কাজ করছে। ‘করোনা-ছোঁয়াচে নয়’- পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার এই তথ্যের ভিত্তিতেই করোনার সমাধান সম্ভব।