আপনাদের মতামত : (শিরোনাম)

সংখ্যা: ২৮৮তম সংখ্যা | বিভাগ:

 

এক দশকেও চিহ্নিত হয়নি অতিদরিদ্র। রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক সুযোগ সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছে দরিদ্র-অতিদরিদ্ররা। সরকারের উচিত দারিদ্র বিমোচনে রাষ্ট্রীয় পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি সম্মানিত যাকাত উনার চেতনা গ্রহণ করা।

****************************

যত্রতত্র গড়ে উঠছে বেসরকারি মেডিকেল কলেজ।

তৈরী হচ্ছে মানহীন চিকিৎসক। চিকিৎসা শিক্ষায় ক্রমেই বাড়ছে বাজারিকরণ। সরকারের উচিত, এসবের বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

****************************

অর্থনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে শ্রীলঙ্কা।

প্রকল্পনির্ভর উন্নয়ন, লাগামহীন বৈদেশিক ঋণই মূলত এর প্রধান কারণ। ক্রমাগত বৈদেশিক ঋণ ও অপ্রয়োজনীয় প্রকল্প গ্রহণ বাংলাদেশকেও এমন পরিস্থিতিতে ফেলতে পারে। সরকারের উচিত, শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক পতন থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা।

****************************

দক্ষিণ এশিয়ায় স্বাস্থ্য খাতে সবচেয়ে কম ব্যয় বাংলাদেশের। সরকারের চেয়ে ৩ গুন বেশি ব্যয় ব্যক্তি তথা জনগণের। স্বাস্থ্যে অতিব্যয়ে বছরে দরিদ্র হচ্ছে ৮৬ লাখ মানুষ। স্বাস্থ্যখাত সহনীয় রাখা কি সরকারের সাংবিধানিক কর্তব্যের বাইরে?

****************************

সম্ভাবনাময় কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর বিপরীতে নেই কর্মসংস্থান। জীবিকার অভাবে অপরাধমূলক কাজে জড়াচ্ছে বেকাররা। শিক্ষাব্যবস্থায় কারিগরি শিক্ষা এবং গৎবাধা উচ্চশিক্ষার মনোভাবই এর জন্য দায়ী। সরকারের উচিত, এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

চলচ্চিত্র নামক হারাম সংস্কৃতির ফাঁদে মুসলিম উম্মাহ। নাটক-সিনেমার মাধ্যমে মুসলিম প্রজন্মকে দ্বীন ইসলাম থেকে দূরে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে।

সিনেমার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী বিস্তার ঘটছে ইসলামোফোবিয়ার। পরকালের কথা স্মরণ করে মুসলিম উম্মাহকে বিধমীর্দের এসব ষড়যন্ত্র থেকে বের হয়ে আসতে হবে।

****************************

দেশের বরেন্দ্র অঞ্চলে চলছে পানি নিয়ে সামন্তবাদী ষড়যন্ত্র। একটি মহলের স্বেচ্ছাচারিতায় বিএমডিসির নলকূপগুলোর পানি পাচ্ছে না সাধারণ কৃষক। সেচের অভাবে অনাবাদী থাকছে ৪০ ভাগ জমি, কৃষি ছাড়ছে বরেন্দ্রের কৃষকরা। সরকারের উচিত, এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

****************************

সুইডেনে পবিত্র কুরআন শরীফে দেয়া হচ্ছে আগুন, ফিলিস্তিনে চলছে মুসলিমদের উপর হামলা-নির্যাতন। বিশ্বজুড়ে বাড়ছে মুসলিম বিদ্বেষ, দ্বীন ইসলাম নিয়ে কটূক্তি। বিপরীতে মুসলিম বিশ্ব নিষ্ক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। মুসলিম উম্মাহর ঐক্যবদ্ধ পদক্ষেপই পারে এদের পর্যদুস্ত করতে।

****************************

শিশু পর্ণোগ্রাফিতে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৫ম। যা সংবিধানে রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম স্বীকৃত রাষ্ট্রে তথা ৯৮ ভাগ জনগোষ্ঠী মুসলমানের দেশের জন্য চরম মর্মান্তিক এবং অবর্ণনীয় অকল্পনীয়। এরকম বীভৎস পরিস্থিতি সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের চরম উদাসীনতা, গাফিলতি এবং দায়িত্বহীনতা এবং দেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রয়োগকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। পর্ণোগ্রাফি বন্ধ না করা হলে আগামী প্রজন্ম হবে পশুবৎ মানসিকতার পঙ্গু প্রজন্ম এবং অতিশীঘ্রই যাদের অস্তিত্ব বিলুপ্ত হবে।

মজুতদারির বিরুদ্ধে শক্তিশালী আইন থাকলেও প্রয়োগ নেই।

মজুতদাররা পাচ্ছে আইনি ছাড়।

মজুতদারিতে অস্থির বাজার, অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল হচ্ছে জনগণ।

মজুতদারি নিরসনে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার চেতনাই হতে পারে মূখ্য সমাধান।

পুকুর-খাল-কুপ খনন, গরুর প্রজনন, আলু ও ধান চাষ শেখা, লিফট দেখা ইত্যাদি অহেতুক প্রকল্পের নামে অপ্রয়োজনীয় বিদেশ ভ্রমণ।

রাষ্ট্রের অপচয় হচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থ, বাস্তব দক্ষতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকারি কর্মকর্তারা।

সরকারের উচিত, দেশের স্বার্থে অহেতুক বিদেশ ভ্রমণের লাগাম টেনে ধরা।

*******************

মুখের কথায় জমির মালিক বনে যাচ্ছে উপজাতিরা। নিজেদের জমি হারিয়ে গুচ্ছগ্রামে বসবাস করছে বাঙালীরা। সরকারের উচিত, বাঙ্গালীদের অধিকার আদায়ে শক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

*******************

বহুজাতিক কোম্পানির ফাঁদে দেশের কৃষি ও কৃষক। চলছে উচ্চফলনশীল জাতের দোহাই দিয়ে ভেজাল রাসায়নিক ও হাইব্রিড বাণিজ্য।

এদের লাগাম টেনে না ধরলে দেশের কৃষি মহাবিপর্যয়ের সম্মুখীন হবে।

************

বাংলাদেশে দারিদ্রতা ও আয় বৈষম্য বিপদসীমার কাছাকাছি। মধ্যবিত্তরা দিন দিন দরিদ্র হচ্ছে এবং দরিদ্ররা আরো অতি দরিদ্রে পরিণত হচ্ছে। বিপরীতে ধনীরা আরো ধনী হচ্ছে।

সরকারের উচিত- আয় বৈষম্যের নিমূর্লীকরণ করে জনসাধারণের সর্বোচ্চ উন্নয়ন করা।

*************

ডান্ডির নেশায় বুদ লাখ লাখ পথশিশু।

শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে রোগব্যাধীতে, নেশার টাকা যোগাতে জড়াচ্ছে ভয়ংকর অপরাধে। পথশিশুদের হক্ব আদায়ে সরকারকে সম্মানিত ইসলামী অনুশাসন মোতাবেক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

*************

ফেনী নদীকে ‘আন্তর্জাতিক’ প্রমাণের ষড়যন্ত্র করছে ভারত।

বাস্তবায়িত হলে তিস্তার মতো ফেনীর পানি থেকেও বঞ্চিত হবে দেশ।

পাশাপাশি, বাংলাদেশের অংশে কৃত্রিম ভাঙ্গনের সৃষ্টি করছে ভারত।

সরকারের উচিত, স্বদেশপ্রেমে উজ্জিবিত হয়ে এ বিষয়ে শক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

*************

ব্যক্তিখাতের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছে দেশের বিদ্যুৎ খাত।

বিদ্যুৎ ক্রয়ে ক্রমশ বাড়ছে ব্যয়, বার বার বাড়ছে মূল্য।

সরকারের উচিত, দেশের বিদ্যুৎখাতকে পরিপূর্ণ রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রনে রাখা।

*************

অস্বাভাবিক পরিবহন ব্যয় ঝুঁকি বাড়াচ্ছে রপ্তানিতে।

ভাড়া বাবদ বিদেশি জাহাজ কোম্পানিগুলোর পকেটে যাচ্ছে ৫০ হাজার কোটি টাকা।

অথচ দেশীয় পণ্যবাহী জাহাজ বৃদ্ধির মাধ্যমে এই অর্থ দেশেই রাখা সম্ভব

সরকারের উচিত এ বিষয়ে সক্রিয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

*************

বাংলাভাষায় মুসলমানদের অবদান ১২০১ সাল থেকেই।

বাংলা ভাষার মূল্যায়নে ইসলামী মূল্যবোধের উজ্জ্বীবন ঘটাতে হবে।

ভাষা শহীদ তথা ইসলামী চেতনায় গ্রোথিত ও প্রতিফলতি করতে হবে।

*************

নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির চাপে পিষ্ট সাধারণ ভোক্তারা।

দিশেহারা হয়ে মধ্যবিত্তরাও দাড়াচ্ছে টিসিবির লাইনে।

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকার ও ব্যবসায়ী উভয়েরই দায়বদ্ধতা ও কর্তব্য আছে।

*************

চাহিদার বেশি উদ্বৃত্ত সত্ত্বেও ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানি অব্যাহত।

নেপাল-ভুটান থেকে বিদ্যুৎ কিনে বেশি দামে বাংলাদেশকে দিচ্ছে ভারত।

বাড়ছে ব্যয়, খেসারত দিতে হচ্ছে জনগণকে।

সরকারের উচিত, আমদানি পরিহার করে দেশীয় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা উন্নত করা।

*************

বিদেশি বিনিয়োগ নির্ভর হতে যাচ্ছে সরকার।

বিপরীতে বাধা আর বৈষম্যে স্থবির দেশীয় বিনিয়োগ।

বিদেশি বিনিয়োগের নাম দিয়ে জনগণের অর্থে বিদেশে সম্পদে পাহাড় তৈরী হবে।

অথচ দেশীয় বিনিয়োগে দেশের অর্থ দেশেই থাকে, জিডিপি শক্তিশালী হয়।

সরকারের উচিত, দেশীয় বিনিয়োগে যথাযথ পৃষ্ঠপোষকতা করা।

মুজাদ্দিদে আ’যম, ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার মহাসম্মানিত হযরত মুরশিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক পৃষ্ঠপোষকতায় পরিচালিত- সম্মানিত দ্বীন ইসলাম ও মুসলমানগণের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে আইনী কার্যক্রম ঐতিহাসিক এক অভূতপূর্ব আজিমুশ্বান তাজদীদ মুবারক (৪)

অপরাধের মাত্রা বাড়ার সাথে সাথে পাল্টাচ্ছে কিশোর অপরাধের ধরণ। মূল্যবোধের অবক্ষয় ও আকাশ সংস্কৃতিই মুখ্য কারণ।সরকারের উচিত- দেশের এই ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বাঁচাতে যুগপৎ উদ্যোগ গ্রহণ করা।

এনজিওগুলোর ক্ষুদ্রঋণের ফাঁদে প্রান্তিক ও গ্রামীণ এলাকার কোটি কোটি মানুষ সর্বস্বান্ত। ঋণের কিস্তির চাপে একের পর এক ঘটছে আত্মহত্যার ঘটনা। ‘ক্ষুদ্রঋণ দারিদ্র বিমোচন নয়, বরং দারিদ্রতা লালন করছে।’ এনজিগুলোর বিরুদ্ধে শক্ত পদক্ষেপ চায় দেশের ৩০ কোটি মানুষ।

অনিয়ম, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনায় খেলাপি ঋণ এখন ৩ লাখ কোটি টাকা। ইচ্ছাকৃত খেলাপিদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ না নিয়ে উল্টো তাদের দেয়া হচ্ছে সুযোগ সুবিধা। ব্যাংকের টাকা জনগণের টাকা। দেশের মালিক জনগণ। সরকার জনগণের টাকা নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে পারেনা।

৭ বছরেও হয়নি পিতা-মাতার ভরণ-পোষণ নীতিমালা। প্রতিনিয়ত ঘটছে সন্তান কর্তৃক অসহায় পিতা-মাতাকে নির্যাতনের ঘটনা। দেশে বাড়ছে পশ্চিমা ‘ওল্ডহোম’ সংস্কৃতি।শুধু নীতিমালা বাস্তবায়নেই নয় বরং দ্বীন ইসলাম উনার আদর্শ প্রচার-প্রসারেই রয়েছে এর সুষ্ঠ সমাধান।