নারী অধিকার প্রসঙ্গে

সংখ্যা: ২১৯তম সংখ্যা | বিভাগ:

সমস্ত প্রশংসা যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি এবং অফুরন্ত দুরূদ ও সালাম পেশ করছি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি এবং আরও ছলাত-সালাম পেশ করছি আমাদের প্রাণের আক্বা সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম এবং সম্মানিত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রতি।

গত ১০ জানুয়ারি ২০১১, সোমবার ‘দৈনিক কালের কণ্ঠে১৫ পৃষ্ঠায় দেশ হোক দুর্নীতিমুক্তশিরোনামে যে রিপোর্টটি পেশ করা হয়েছে তারই কিছু উদ্ধৃতি নিচে পেশ করা হলো-

“ছবি তুলছি, ছবি তোলা শেখাচ্ছি, এর পাশাপাশি সমান্তরালভাবে শিশুদের নিয়ে কাজ করছি। গত রোযার ঈদে দেশ টিভির জন্য নির্মাণ করলাম শিশুদের নাটক। চিলড্রেন্স ফিল্ম সোসাইটির মাধ্যমে সারা দেশের শিশুদের কাছে দেশ-বিদেশের ভালো চলচ্চিত্র দেখার সুযোগ তৈরি করে দিচ্ছি। এই কাজ করার পেছনে একটি বড় স্বপ্ন আছে। সেই স্বপ্নটি হচ্ছে দুনীতিমুক্ত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ একদিন মাথা তুলে দাঁড়াবে বহির্বিশ্বে। …….. প্রতি বছর আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসবের মধ্য দিয়ে নানা দেশের নানা সংস্কৃতির ভালো কিছু মূল্যবোধের ছবি দেখিয়ে শিশুদের মনে লোভহীন, সততার প্রলেপ দিয়ে যাচ্ছি। এই সমৃদ্ধ মনের শিশুরাই একদিন বড় হয়ে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে এ দেশটিকে দুর্নীতিমুক্ত সুন্দর, দেশ হিসেবে গড়ে তুলবে- এই স্বপ্ন বিভোর হয়ে আমি সেই ভবিষ্যতের সুন্দর, সৎ মুখগুলোর শৈশবের ছবি তুলে যাচ্ছি।” (নাউযুবিল্লাহ)

কতইনা হাস্যকর উপরের প্রগতিশীল মহিলা রিপোর্টারের প্রলাপ। বাস্তবতা নয়, ধর্ম নয়, নিজ অস্তিত্ব নয় বরং কল্পনার সাগরে হাবুডুবু খেতেই এই সব তথাকথিত নারীবাদীদের বড় সখ। আর তাই কল্পনার রাজ্যেই তারা বিচরণ করে চলেছে। দুনিয়া হয়েছে তাদের কল্পনার স্বর্গরাজ্য আর পরকাল শূন্য অর্থাৎ ‘পরকাল’ বলে কিছু আছে, পরকালে ‘স্বর্ণ’ আছে এটা বোধ করি তাদের জানা নেই। অথবা জানা থাকলেও নিজেরাই না জানার ভান করে শুধুমাত্র দুনিয়াকে ‘স্বর্ণরাজ্য’ হিসেবে পাবার আশায়। সুতরাং এদের মতো নারীবাদীদের জীবন নিয়ে আলোচনার সময় আমাদের নেই। আমরা শুধু বলতে চাই মুসলমান নামে অর্থাৎ মুসলমান দাবি করে একটা মুসলমান দেশে কি করে ইসলামী শরীয়ত উনার বিরোধী কথা বলতে পারে? উৎসাহ প্রদান করতে পারে? আম মানুষকে হারাম কাজে উদ্বুদ্ধ করতে পারে?

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে রয়েছে- “প্রত্যেক ছবি তুলনেওয়ালা, রাখনেওয়ালা জাহান্নামী।” ছবি তোলা, আঁকা, রাখা সবই নিষেধ করা হয়েছে। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে উল্লেখ করা হয়েছে- উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণিত হয়েছে- “যখন সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি গৃহে প্রবেশ করতেন তখন ঘরে ছবিযুক্ত কোন জিনিস দেখতে পেলে তা ধ্বংস করে ফেলতেন।” সুবহানাল্লাহ!

সুতরাং এটাই যদি হয়ে থাকে যিনি কায়িনাতের মূল, যিনি মালিক উনি ছবি ভাস্কর্য ধ্বংস করতে বলেছেন। সেখানে উনারই উম্মত দাবি করে সেই ছবি তোলাকে ঘরে ঘরে ছোট শিশুদের মাঝে প্রতিষ্ঠিত করা এবং শিশুদেরকে এই হারাম কাজ শিখিয়ে তারই মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করে রাখা এটা কিসের ইঙ্গিত বহন করে?

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদেরকে অমান্য করা; মুসলমান থেকে খারিজ হওয়া; কাফির হওয়া; নাকি অন্য কিছু! ‘ছবি’ তোলা বর্তমান প্রেক্ষাপটে কোন শালীনতার কাজ নয়। ছোট শিশুরা থেকে বড়রা পর্যন্ত ছবি তোলে, আঁকে, রাখে; এমনকি টেলিভিশনে সার্বক্ষণিক ছবির মাধ্যম দিয়েই হারাম কাজ দেখে থাকে, করে থাকে। সুতরাং ‘ছবি তোলা’ এবং সিনেমা নাটক বানানো কোন নৈতিকতার কাজ না বরং এটা অশালীন, নোংরা, অনৈতিকতার কাজ। আর যেখানে শিশুদের মন-মগজে অনৈতিকতার কাজ শেখানো হচ্ছে সেখানে কি করে সেই শিশুর কাছ থেকে আসা করা যায় সে বড় হয়ে দুর্নীতিমুক্ত, সুন্দর দেশ গড়বে?

স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রীদেরকে নিয়ে এখানকার পিতা-মাতারা বড়ই উদগ্রীব থাকে। স্কুল-কলেজ এমনকি কোচিং সেন্টারগুলোতে পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের চেয়ে অভিভাবকদেরই বেশি দেখা যায়। কারণ একাকী ছেলে কিম্বা মেয়েকে বাইরে ছাড়তে রাজি নন। এমনকি ঘরে ছেলে-মেয়েকে রেখেও পিতা-মাতারা দুশ্চিন্তা করতে থাকে টেলিভিশনে, ইন্টারনেটে মোবাইল, কম্পিউটারের মাধ্যমে হারাম ছবি দেখা থেকে। আর এই হারাম ছবি তোলা, দেখা থেকে লাখো অনৈতিক কর্মে জড়িয়ে পড়েছে। জড়িয়ে পড়ছে শিশুরা, ছাত্রীরা এবং বড়রা পর্যন্ত। সুতরাং হারাম ছবি তোলা, দেখা থেকে কি করে নৈতিকতা শিখতে পারে এবং শেখাতে পারে- এটা বিবেকবান মানুষের কাছে আমাদের প্রশ্ন।

পাঠক সমাজ! কল্পনা নয়, মিথ্যা বাস্তবতা দিয়ে সত্যকে উপলব্ধি করুন। হারাম কাজ থেকে হারাম কাজই শেখা হবে। অর্থাৎ হারাম কখনও হালাল হবে না। যে ব্যক্তি হারামকে হালাল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে যাবে বরং তারই ধ্বংস অনিবার্য।

সুতরাং ছবি তোলা, আঁকা, রাখা নয়, নাটক-সিনেমা বানানো বা দেখা নয়। এগুলো থেকে এবং আরও যত হারাম কাজ আছে সবগুলো থেকে তওবা করে হালাল কাজে মশগুল হতে হবে। ছবি তোলা বাদ দিতে হবে। যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন এবং উনার হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা যা করতে নির্দেশ করেছেন সেটাই পালন করতে হবে, যা করতে নিষেধ করেছেন সেটা থেকে বিরত থাকতে হবে- তবেই সবার জন্য নৈতিকতা শিক্ষা লাভ করা সম্ভব। আর সবার মধ্যে যদি নৈতিকতা বজায় থাকে তবেই একটা দেশকে দুর্নীতিমুক্ত রাখা সম্ভব হবে ইনশাআল্লাহ। আমীন।

-আহমদ আজিমা ফারহা।

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)