নারী অধিকার প্রসঙ্গে

সংখ্যা: ২০০তম সংখ্যা | বিভাগ:

“কর্মস্থলে নারীর প্রতি পুরুষ সহকর্মীর আচরণ কেমন হওয়া উচিত- এ প্রশ্নের জবাবে একজন কবি বলেছেন, নারীর প্রতি বন্ধুত্বপূর্ণ, সহমর্মিতা ও সহযোগিতা পূর্ণ আচরণ করা উচিত। আমাদের পাশের নারী সহকর্মীকে পুরুষ সহকর্মীর মতোই দেখা উচিত। একই সুরে সুর মিলিয়ে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজের কো-অর্ডিনেটর বলেছেন, ধর্মীয় ও সামাজিক কারণে পুরুষ ও মহিলাদের মেলামেশা কম। যে বস্তুটি আমাদের জন্য নিষিদ্ধ আমরা সাধারণত সেটার প্রতিই বেশি আকৃষ্ট হই। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক সমঝোতা না থাকলে অনেক সময়ই দেখা যায়, অনেক পুরুষ অন্য কোথাও শান্তি খুঁজতে চান। একজন নারী সহকর্মীর সাথে একজন পুরুষ সহকর্মীর মতোই আচরণ করা উচিত। আমার দ্বারা সে যেন কোন রকম শারীরিক ও মানসিক লাঞ্ছনার শিকার না হন সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এক্ষেত্রে অফিসিয়াল ম্যানেজমেন্টকে শক্ত হতে হবে।” (সূত্র: দৈনিক সমকাল, ২৮ মার্চ ২০১০ ঈসায়ী সন)

উপরের রিপোর্টটি পড়ে আমরা সুখের চাইতে দুঃখটাই বেশি অনুভব করছি। তার প্রধান কারণটা হচ্ছে তথাকথিত সমাজের প্রগতিবাদীরা। তাদের কথায়, তাদের শান্তনায় নারী জাতির এত শোচনীয় অবস্থা দেখেও পর্দার মধ্যে রাখতে চাইছে না। তারা আরো তাদের কাছেই জমাকৃত টাকা পয়সার মত আষ্টে-পৃষ্টে বেঁধে রাখতে চাইছে! টাকা পয়সা হাতাতে যেমন পুরুষদের আনন্দের সীমা থাকে না তেমনি নারীকে যথেচ্ছ ভোগ করতেও তাদের আনন্দের সীমা থাকে না। তাই উক্ত তথাকথিত ব্যক্তিদের শান্তনার বাণীই হচ্ছে- পুরুষ সহকর্মীদের সাথে নারী সহকর্মীরাও তাদের মনোরঞ্জনের পাত্রী হয়ে থাকুক। নাঊযুবিল্লাহ!

এখন আমাদের জানার বিষয়- বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে পুরুষদের সান্নিধ্যেই যদি থাকতে হয় তাহলে ‘নারীদের স্বাধীনতা রইল কোথায়? তোমাদের ইচ্ছাই কি নারীদের পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ রাখা? না কি শুধু নারীত্বের অপমান’ করাই তোমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য? তোমরা কি আল্লাহ পাক উনার বিধান ‘পর্দা প্রথা’কেই অস্বীকার করতে চাও? তাই যদি হয় তবে আমরা ‘নারী জাতি’ বলতে বাধ্য হচ্ছি-

প্রথমেই আমাদের পরিচয়

আমরা মুসলমান।

পুরুষও মুসলমান

নারীও মুসলমান।

তবে কেন শরীয়তের বিধান পুরুষদের এবং নারীদের মধ্যে স্বীকৃত হবে না? তোমরা কি অস্বীকার করতে পারো তোমরা আল্লাহ পাক উনার বান্দা নও? তাহলে তোমরা কি? তোমরা কি সেই জাহান্নামীদেরই সঙ্গী-সাথী? হয়তোবা তাই? তোমাদের বদ আমলই তোমাদের চিরন্তন শাস্তির ইন্ধন যোগাবে।

তোমরা তওবা কর।

নারী আর পুরুষকে একত্রে মিলিত হওয়ার মত কর্মক্ষেত্রে সুযোগ করে দিও না। নারীর জন্য তোমরা পর্দার সাথে আলাদা কর্মক্ষেত্রের ব্যবস্থা কর। যেখানে কোন পুরুষ কর্মচারী থাকবে না। নারীরাই শুধু নারীদের সহকর্মী হবে। পুরুষরা নজরের অর্থাৎ দৃষ্টির পর্দা করবে। এক. নিজেরাই নিজেদের হিফাযত করবে। নারীরা রাস্তায়, যানবাহনে বোরকা পরে যার যার স্ব স্ব কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করবে। একটা পুরুষ যেমন মহিলাদের দেখতে পাবে না তেমনি একজন নারীও পুরুষদের দেখতে পাবে না। আর সেটাই যদি হয় তবেই দেখা যাবে নারী স্বাধীনতার জয় জয়কার। পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে নারীরা মুক্তি পেয়েছে। পরিবারে, সমাজে, দেশে নারীদের পদচারণাই সাক্ষী দেবে পর্দানশীন মহিলাদের স্বার্থকতার। আর তোমাদের মত মেরুদ-হীন পুরুষদেরও মুখোশধারী, ধ্বজাধারী, নারীলোলুপ, সমাজের কীট হিসেবে পরিচিত হতে হবে না। তোমরা যদি নারীদের শরীয়তের গ-ির মধ্যে রেখে মূল্যায়ন করতে পারো, তবে তোমাদেরও আর অবমূল্যায়ন হবে না। নারী জাতির স্বার্থকতার সাথে পুরুষ জাতির স্বার্থকতা বজায় থাকবে স্ব স্ব গৌরবে। ইনশাআল্লাহ!

তাই সর্বস্তরের মানুষের প্রতি আমাদের আহবান! আপনারা যে কোন পেশার ব্যক্তিবর্গ হোন না কেন, নারী কিংবা পুরুষ প্রত্যেককে আল্লাহ পাক তিনি ও উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের আদেশ-নিষেধকে নিজেদের বাস্তব জীবনে গ্রহণ করে নিন।

আপনারা যে মুসলমান

আপনারা যে মুসলিমা

আপনারা যে আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার উম্মত- সেই দাবিতে

তারই মর্যাদা বজায় রাখুন।

আমরা বিশ্বাস করি আমাদেরকে যেভাবে আল্লাহ পাক হিফাযত করেছেন, শান্তি দিয়েছেন। ঠিক তেমনি দ্বীন ইসলামের সুশীতল ছায়ায় যদি আপনারাও আসেন তবে মহান খালিক্ব, মালিক রব্বুল আলামীন আল্লাহ পাক আপনাদেরকেও হিফাযত করবেন, শান্তি দিবেন। ইনশাআল্লাহ!  (আমীন)

-আজিমা ফারহা, ঢাকা।

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)