যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-৯৭

সংখ্যা: ২২৪তম সংখ্যা | বিভাগ:

মূলত যুগে যুগে মিথ্যাবাদী আর মুনাফিকরাই হক্বের বিরোধিতা করেছে, হক্বের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করেছে। তাই খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে মুনাফিকদেরকে ‘কাযযাব’ বা মিথ্যাবাদী বলে উল্লেখ করেছেন। যেমন- পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “মহান আল্লাহ পাক তিনি সাক্ষ্য দিচ্ছেন যে, নিশ্চয়ই মুনাফিকরাই মিথ্যাবাদী।” (পবিত্র সূরা মুনাফিকুন শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১)

উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ দ্বারা এটাই প্রমাণিত হয় যে, যারা মুনাফিক তারা অবশ্যই মিথ্যাবাদী। আবার যারা মিথ্যাবাদী তারাই মুনাফিক। কেননা, পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে মুনাফিকের যে আলামত বা লক্ষণ উল্লেখ করা হয়েছে তন্মধ্যে একটি হলো মিথ্যা কথা বলা।

মুজাদ্দিদে আ’যম ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার যারা বিরোধিতাকারী তারা উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদেরই পূর্ণ মিছদাক। অর্থাৎ তারা একই সাথে মুনাফিক ও কাট্টা মিথ্যাবাদী। তাই তারা মানুষদেরকে বিভ্রান্ত করার জন্যে স্মরণিকা-বার্ষিকী, পত্র-পত্রিকা এবং বক্তৃতার মাধ্যমে মিথ্যা ও প্রতারণার আশ্রয় নেয়।

(ধারাবাহিক)

পরিশিষ্ট

কিন্তু বাদশাহ জাহাঙ্গীর কিছুটা সহিষ্ণুতার সাথে কর্ম সম্পাদন করলেন। তিনি উল্লেখিত অবস্থাগুলোর ফলস্বরূপ হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে দুই বৎসরের জন্য কয়েদ করার হুকুম জারি করে গোয়ালিয়র দুর্গে প্রেরণ করেন। হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বর্ণনা করেছেন, “এ কয়েদ আমার নফসের সংশোধন কাজে বিশেষ সহায়ক হয়েছিল।” (হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি ১ম খণ্ড ২২২ পৃষ্ঠা)

ঠিক একইভাবে বর্তমান যামানার মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার তাজদীদী ফতওয়ার কারণে যখন উলামায়ে ‘সূ’দের ধর্মব্যবসায়ী চেহারা জনগণের সমানে সুস্পষ্ট হয়ে উঠে, তখনই তারা উনার আক্বীদা ও আমলে কোন ভুল না পেয়ে উনার সঠিক ও পবিত্র কুরআন শরীফ-পবিত্র সুন্নাহ শরীফ সম্মত বক্তব্যসমূহ কাটছাঁট করে ও অপব্যাখ্যা করে বেঠিক ও পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী বলে জনসম্মুখে উপস্থাপন করার অপচেষ্টায় রত হয়। তার জ্বলন্ত প্রমাণ আপনারা এ কিতাবটিতেই পেয়েছেন।

আপনারা আরো জনতে পেরেছেন যে, স্বঘোষিত মুশরিক শামসুসহ বর্তমান যামানার উলামায়ে ‘সূ’রা তাদের রেসালা ও লিফলেটসমূহে রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম ও মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ পত্রিকায় প্রকাশিত বক্তব্যসমূহ কিভাবে কাটছাঁট করে তাদের ইচ্ছামতো সাজিয়ে ও অপব্যাখ্যা করে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। তবে কোন সন্দেহ নেই যে, মহান আল্লাহ পাক উনার রহমতে বর্তমান উলামায়ে ‘সূ’ কাযযাব গংদের সকল প্রকার মিথ্যা, অপপ্রচার ও অপব্যাখ্যার বিষদাঁত ভেঙ্গে দেয়ার জন্য এই কিতাবটিই যথেষ্ট, যদিও কলেবর বৃদ্ধি হওয়ার আশঙ্কায় প্রতিটি বিষয় অতি সংক্ষেপে উল্লেখ করা হলো। তবে প্রয়োজনে বিস্তারিতভাবে তাদের মিথ্যাচারিতা ও ভ-ামির জবাব দেয়া হবে ইনশাআল্লাহ।

-মুফতী মুহম্মদ আবু ইসহাক, বাসাবো।

চাঁদ দেখা ও নতুন চন্দ্রতারিখ নিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনা-৫১

জনগণের প্রতি আইনমন্ত্রীর মিথ্যা অভিযোগ; দেশের প্রতি ঘাদানিকের মিথ্যা অজুহাত; আর সংবিধান সংশোধন প্রশ্নে ৯৭ ভাগ অধিবাসী মুসলমান এবং দশ লাখ মসজিদ, লাখ লাখ মাদরাসা ও পাঁচ ওয়াক্ত আযান প্রসঙ্গে।

কালো টাকার প্রাদুর্ভাব এবং করের বিপরীতে যাকাত প্রদান প্রসঙ্গে

ষাট হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে প্রাথমিক শিক্ষা প্রকল্প? দুর্নীতিতে জরাগ্রস্ত প্রশাসন থেকে রাজনীতি তথা সর্বস্তরে দুর্নীতির অভিযোগ এবং প্রাথমিক শিক্ষার প্রতিফলন (?) প্রসঙ্গে (১)

নির্বোধ রাষ্ট্রের অধীনে বোধশক্তিসম্পন্ন মানুষ বাস করতে পারে কিভাবে? কল্পিত রাষ্ট্র কথিত নির্বোধ বলেই পরকীয়া, খুন, সম্ভ্রমহরণ, ছিনতাই, রাহাজানি, পর্নোগ্রাফি, দুর্নীতি ইত্যাদির রহস্য বের করতে পারে না। আর সমাজে ব্যাপকহারে বেড়ে যাচ্ছে ওইসব অবক্ষয় জনিত ঘটনা। বোধশক্তিসম্পন্ন মানুষ আর কতকাল নির্বোধ রাষ্ট্রের অরাজকতা বরদাশত করবে? (১)